সোমবার | ৩রা আগস্ট, ২০২০ ইং |

কোভিড-১৯ মৃত্যু ও নারী পুরুষ বৈষম্য টিএলআর- সেভেন

ডাঃ ইসমত কবীর, বর্তমানকন্ঠ ডটকম, যুক্তরাজ্য : কোভিড১৯ এ জটিলতা ও মৃত্যুর ক্ষেত্রে দুনিয়াজুড়ে পুরুষরা এগিয়ে আছে। বাংলাদেশে নারীর তূলনায় পুরুষ মৃত্যুর হার চারগুণ বেশি। ইতালীর পঞ্চাশ বছরের নীচে মৃত্যুবরণকারীদের পরিসংখ্যানেও একই চিত্র। অনেক দেশে এটা অন্ততঃ দ্বিগুণ।

ঐতিহাসিকভাবেও এ সত্যটা প্রতিষ্ঠিত। একশ বছর আগের স্পেনিশ ফ্লু মহামারী বা সাম্প্রতিককালের সার্স কোভি ও মার্স কোভি সংক্রমণের ক্ষেত্রেও ছিল একই চিত্র।

কারণ হিসেবে দেখানো হয়েছে পুরুষরা বাইরে যান বেশি, সামাজিক মেলামেশায় পুরুষরা সব সময়ই এগিয়ে। পুরুষদের মধ্যে আনুষঙ্গিক রোগ যেমন ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ এবং হৃদরোগের প্রকোপ বেশি। অনেকে নারীর বিশেষ হরমোনগুলোর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে কৃতিত্ব দিয়েছেন।

সম্প্রতি কিছু আবিষ্কারে দেখা যাচ্ছে এর মূল কারণ লুকিয়ে আছে নারী শরীরের ক্রোমোজমে।

তেইশ জোড়া ক্রোমোজমের মধ্যে নারী শরীরে আছে দুটো ‘এক্স’ ক্রোমোজম, পুরুষের ক্ষেত্রে হচ্ছে একটি ‘এক্স’ ও একটি ‘ওয়াই’।

‘এক্স’ ক্রোমোজমে রয়েছে টিএলআর৭ জিন তা টিএলআর৭ (Toll Like Receptor 7) নামের প্রোটিন তৈরী করে।

টিএলআর৭ সুনির্দিষ্টভাবে করোনা ভাইরাস এর মতো আরএনএ ভাইরাস চিহ্নিত ও নিষ্ক্রিয় করতে পারে।

পুরুষের একটি মাত্র ‘এক্স’ ক্রোমোজমের জিন এক ধরণের টিএলআর৭ তৈরী করে যা ত্রুটিপূর্ণ হলে ঝুঁকি বেড়ে যায়৷

নারীর দ্বিতীয় এক্স ক্রোমোজমটি স্বাভাবিকভাবে নিষ্ক্রিয় হয়ে যায় কিন্তু বিস্ময়করভাবে টিএলআর৭ জিন এলাকা কার্যকর থাকে। এর ফলে নারীর দ্বিতীয় সক্রিয় টিএলআর৭ জিন এক্ষেত্রে অতিরিক্ত সুরক্ষা দেয়।

সম্প্রতি নেদারলল্যান্ড এর র‍্যাডবুড ইউনিভারসিটি মেডিক্যাল সেন্টার (Radboud University Medical Center) এ দুভাই কোভিড১৯ এর জটিলতা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন। এদের একজন মারা যান৷ তাঁদের এক্স ক্রোমোজমে ত্রুটিপূর্ণ টিএলআর৭ জিন এর উপস্থিতি নিশ্চিত করা হয়। পরবর্তিতে এ রকম কোভিড১৯ আক্রান্ত আরো দুই ভাইয়ের বেলা এ ত্রুটি পাওয়া যায়। গতকাল এ সম্পর্কিত গবেষণাটি প্রকাশিত হয়েছে।

টিএলআর৭ প্রোটিন এর ভাইরাসরোধী ভূমিকা বিজ্ঞানীদের উৎসাহিত করছে এ গবেষণার ভিত্তিতে কার্যকর ওষুধ উদ্ভাবন করতে।

(পাদটীকাঃ নারী নেতৃত্বের কিছু দেশ কোভিড১৯ মোকাবেলায় অপূর্ব সফলতা দেখিয়েছে। এটা কি নিছক কাকতালীয়?)

লেখক : জেরিয়াট্রিক ও জেনারেল মেডিসিন বিশেষজ্ঞ রেজিস্ট্রার, কুইন এলিজাবেথ দা কুইন মাদার হসপিটাল, মারগেট, কেন্ট, যুক্তরাজ্য।

সময় বাচাঁতে ঘরে বসে কেনা-কাটা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *