রবিবার | ৩১শে মে, ২০২০ ইং |

নেতাকর্মীদের ধন্যবাদ দিয়েছেন শেখ হাসিনা

বর্তমানকন্ঠ ডটকম : ‘আমি ধন্যবাদ জানাই, কারণ আমাদের ফসল তোলার সময়ে যে সংকট ছিলো, যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ। সাধারণত আমাদের এক অঞ্চল থেকে অন্য অঞ্চলে ধান কাটতে লোক আসে। কিন্তু এবার সেই সুযোগ সীমিত ছিলো। এরপরও আমরা উদ্যোগ নিলাম। তারপরও লোকবলের অভাব ছিলো। আমি প্রথমে ছাত্রলীগকে আহ্বান জানালাম, যে যেখানে আছে নিজের এলাকা সব জায়গায় তাদের নামতে হবে এবং ধান কাটায় কৃষকের পাশে দাঁড়াতে হবে। মনে রাখতে হবে। এ ধান থেকে চাল আর চাল থেকে ভাত হয়। সেই ভাত খেয়ে আমরা বাঁচি, আমাদের মূল খাদ্য। কাজেই এই কাজ করতে লজ্জার কিছু নেই গর্বের বিষয়। আমরা যা খেয়ে জীবন বাঁচাই সেখানে শ্রম দেবো না এই দৈন্যতা কারো মধ্যে যেন না থাকে।’

করোনা সংকটে সরকারের সহযোদ্ধা হয়ে ত্রাণসামগ্রী নিয়ে সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়ানোর পাশাপাশি, ধান কেটে কৃষকের গোলায় তুলে দেওয়ায় নেতাকর্মীদের এই ধন্যবাদ দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বৃহস্পতিবার (১৪ মে) ভিডিও কনফারেন্সে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে কর্মহীন দিনমজুরদের মধ্যে নগদ অর্থ দেওয়া এবং স্নাতক ও সমমান পর্যায়ের ২০১৯ সালের শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি ও টিউশন ফি বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এই ধন্যবাদ জানান তিনি।

তিনি বলেন, ‘আগামীতে আবার যে ফসল ফলাতে হবে, ইতিমধ্যে আমি নির্দেশনা দিয়েছি এক ইঞ্চি জমিও অনাবাদী থাকবে না। কারণ মনে রাখতে হবে, এখন যেমন শিল্পখারখানা সেভাবে চলতে পারছে না, আমদানি-রপ্তানিতে সীমাবদ্ধ তৈরি হয়েছে। সেই অবস্থায় আমাদের দেশের মানুষের যেন খাদ্যের অভাব না হয়, সেদিকে লক্ষ্য রেখেই আমাদের যে উর্বর জমি আছে সেটা কাজে লাগাতে হবে। অন্তত ঘরের খাবার উৎপাদন করে নিজেরা খাবে।’

করোনা সংকটে সুপরিকল্পিতভাবে ত্রাণ বিতরণ চলছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘প্রত্যন্ত অঞ্চল পর্যন্ত খোঁজ নিচ্ছি। মোবাইল ব্যাংকিংকের মাধ্যমে নগদ অর্থ সহায়তা প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর নজরদারি করছে।’

করোনা পরিস্থতিতে দেশবাসীকে সরকারের ওপর আস্থা রাখার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘মনে বিশ্বাস রাখবেন, মনোবল রাখবেন। যেকোনও পরিস্থিতি মোকবিলা করতে প্রস্তুতি রাখবেন।’

তিনি বলেন,”সত্যি আমি খুব আনন্দিত, ধন্যবাদ জানাই ছাত্রলীগের সঙ্গে কৃষক লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী প্রত্যেকে নেমে গেছেন যে যেখানে ছিলো। এই ধান কাটায় সহযোগিতা করেছে। এখন কৃষকের গোলা ভরা ধান।”

সময় বাচাঁতে ঘরে বসে কেনা-কাটা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *