| ২৪শে জানুয়ারি, ২০২০ ইং | ১০ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ২৯শে জমাদিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরী | শুক্রবার নিম্ন আদালতের শৃঙ্খলাবিধি: ৩ ডিসেম্বরের আগেই গেজেট প্রকাশ – Bartaman Kanho

Bartaman Kanho

বর্তমানকণ্ঠ ডটকম

নিম্ন আদালতের শৃঙ্খলাবিধি: ৩ ডিসেম্বরের আগেই গেজেট প্রকাশ

নিউজ ডেস্ক,বর্তমানকণ্ঠ ডটকম: অধস্তন আদালতের বিচারকদের চাকরির শৃঙ্খলাসংক্রান্ত বিধিমালা গেজেট আগামী ৩ ডিসেম্বরের আগেই প্রকাশের প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক।

বৃহস্পতিবার (১৬ নভেম্বর) রাতে রাজধানীর কাকরাইলে জাজেস কমপ্লেক্সে দায়িত্বরত প্রধান বিচারপতি আব্দুল ওয়াহাব মিয়ার বাসভবনে বৈঠকের পর সাংবাদিকদের এ কথা জানান আইনমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘আপনার জানেন যে নিম্ন আদালতের শৃঙ্খলাবিধি নিয়ে আপিল বিভাগের সঙ্গে অ্যাটর্নি জেনারেলের বৈঠকের বিষয়ে কিছু কথোপকথন হয়েছিল। গত বৃহস্পতিবার সে বৈঠক হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সেদিন বৈঠকটি না হওয়ায় আজকের এ বৈঠক। এ তারিখটিও পূর্বনির্ধারিতই ছিল।’

আইনমন্ত্রী বলেন, ‘শৃঙ্খলাবিধির ব্যাপারে কিছু মতপার্থক্য ছিল। আমি খুব আনন্দের সঙ্গে বলতে পারি যেসব মতপার্থক্য ছিল সেসব দূর করেছি। আমরা (আপিল বিভাগের পাঁচ বিচারপতি ও আইনমন্ত্রী) ঐক্যমত্যে এসেছি। এটা এখন মহামান্য রাষ্ট্রপতির কাছে পাঠাবো। রাষ্ট্রপতির হুকুম পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আমরা এ গেজেট প্রকাশ করবো। রাষ্ট্রপতি অনুমতি দিলে ৩ ডিসেম্বরের আগেই গেজেট প্রকাশ করতে পারবো। এখন রাষ্ট্রপতির অনুমতির অপেক্ষা।’

উল্লেখ্য, চলতি মাসের ৫ নভেম্বর দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহ্‌হাব মিঞার নেতৃত্বে ৫ বিচারপতির আপিল বেঞ্চে গেজেট প্রকাশে রাষ্ট্রপক্ষের করা ৪ সপ্তাহের সময়ের আবেদনের শুনানিতে অ্যাটর্নি জেনারেল জানিয়েছিলেন, আইনমন্ত্রী বিষয়টি নিয়ে বসতে চান। শুনানি শেষে গেজেট প্রকাশে আগামী ৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় দিয়েছেন সর্বোচ্চ আদালত।

এর আগে গত ৮ অক্টোবর আদালত গেজেট প্রকাশে ৫ নভেম্বর পর্যন্ত সময় মঞ্জুর করেন। তার আগে একই বিষয়ে বহুবার সরকারকে সময় দেয় আদালত। তবে সরকারের পক্ষ থেকে প্রতিবারই আরও সময় চেয়ে বারবার আবেদন করা হয়।

আর গত ২০ আগস্ট প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে ৬ বিচারপতির আপিল বেঞ্চ শুনানি শেষে ৮ অক্টোবর পর্যন্ত গেজেট প্রকাশের সময় বাড়িয়েছিলেন।

১৯৯৯ সালের ২ ডিসেম্বর মাসদার হোসেনের মামলায় (বিচার বিভাগ পৃথককরণ) ১২ দফা নির্দেশনা দিয়ে রায় দেয়া হয়। ওই রায়ের ভিত্তিতে নিম্ন আদালতের বিচারকদের চাকরির শৃঙ্খলা সংক্রান্ত বিধিমালা প্রণয়নের নির্দেশনা ছিল।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *