‘সুন্দরী নারী পুলিশের হাতে’ বিনা অপরাধেও ধরা পড়তে চান পুরুষরা

বিনোদন ডেস্ক, ,বর্তমানকণ্ঠ ডটকম,বুধবার ২২ নভেম্বর ২০১৭: নারীর সৌন্দর্য যেন প্রকৃতির মতোই অকৃত্রিম। যুগ যুগ তার সৌন্দর্য আর মোহনীয়তায় মুগ্ধ পুরুষ সেই নারীতেই নিজেকে সপে দেয়। কৈশোর থেকে যৌবনের গোধূলী পর্যন্ত পুরুষের আরাধ্য দেবী হয়ে উঠে নারী। পুরুষ তাকে তার মনের মতো করে মনমন্দিরে সাজিয়ে নেয়। প্রেমার্ঘ নিবেদন করে।

সুন্দরের আরাধনা পৃথিবীর সূচনালগ্ন থেকেই হয়ে আসছে। হাসপাতালে সুন্দরী নার্স থাকলে রোগী এমনিতেই অর্ধেক সুস্থ হয়ে যায়- কবি তো এমন কথাও বলে গেছেন।

কিন্তু সেই নারীই আবার কখনও কখনও চণ্ডী রূপ ধারণ করে শয়তানের সংহারে আবির্ভূত হন। তথাপি নারীর সৌন্দর্যে যেন লীন হয়ে যায় তার কঠিন রূপটিও। শত কঠিন হলেও সেই নারীর সৌন্দর্যের সান্নিধ্য পেতে চায় হাজারো পুরুষ। আবার সেই নারীকে কেন্দ্র করে ইতিহাসে বহু সাম্রাজ্যের পতনের প্রমাণও আছে।

কথার প্রসঙ্গে কবিগুরুর সঙ্গে এক নারীর পিঠা বিষয়ক রসাত্মক মুহূর্তটি তুলে ধরা যায়। একবার এক নারী কবির জন্য নিজ হাতে তৈরি কিছু পিঠা নিয়ে আসেন। পিঠা কেমন হয়েছে কবির কাছে জানতে চাইলে কবিগুরু ওই নারীকে বলেছিলেন- ‘লৌহ কঠিন, প্রস্তর কঠিন, আর কঠিন ইষ্টক, তাহার অধিক কঠিন কন্যা তোমার হাতের পিষ্টক।’

বাংলাদেশসহ বিশ্বের প্রায় সবদেশেই গুরুত্বপূর্ণ ও চ্যালেঞ্জিং পেশার সঙ্গে জড়িত নারীরা। সেইসব নারীদের মধ্যে অনেকেই আছেন যারা ফিল্মের নায়িকা হলেও সফল হতেন। এর মধ্যে অসংখ্য নারী আছেন যারা পুলিশে চাকুরি করেন। তাদের কাজ অপরাধী ধরা।

কিন্তু কোনও চোর, ছিনতাইকারী কিংবা অপরাধী কি সহজে পুলিশের হাতে ধরা দেয়! দেয় না। তবে সুন্দরী নারী পুলিশ অফিসারের হাতে ধরা পড়ার জন্য নাকি অনেক অপরাধী অপেক্ষা করে থাকেন। বিনা অপরাধে তার হাতে আটক হওয়ারও ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন অনেকে।

সম্প্রতি এক সুন্দরী ‘পুলিশ কর্মকর্তা’র ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে গেছে। পাঞ্জাব পুলিশে এমন সুন্দরী কর্মকর্তা আদৌ আছে কিনা তার খোঁজ না নিয়েই গ্রেফতার হওয়ার জন্য উঠে পড়ে লেগেছেন কেউ কেউ।

যাকে নিয়ে এতো শোরগোল তিনি ‘হারলিম মান’। তবে এটা তার আসল নাম নয়। তিনি কোনো পুলিশ কর্মকর্তাও নন। তার আসল পেশা অভিনয়। তিনি অভিনেত্রী কাইনাত অরোরা। আর ‘হারলিম মান’ সম্প্রতি অভিনীত চলচ্চিত্রে তার চরিত্রের নাম।

বলিউডের এই অভিনেত্রী এখন অভিনয় করছেন পাঞ্জাবে। বলিউডে তেমন সাফল্য পাননি কাইনাত। অভিনয় করেছেন ‘গ্র্যান্ড মস্তি’, ‘খাট্টা মিঠা’ ছবিতে। আর সম্প্রতি পাঞ্জাবি ছবি ‘জগ্গা জিউনদে’-তে এক নারী পুলিশ কর্মকর্তার ভূমিকায় দেখা গেছে তাকে। ওই ছবির শ্যুটিংয়ের সময় তোলা কয়েকটি ছবি ভাইরাল হয়ে গেছে। আর তাতেই এসব কাণ্ড।

বাধ্য হয়ে এ বিষয়ে নিজ ইন্সটাগ্রামে একটি পোস্ট করেছেন কইনত অরোরা। এতে তিনি বলেন, ‘আমি কোনও পুলিশ কর্মকর্তা নই। আমার নামও হারলিন মান নয়। ওটা আমার আগামী ছবির চরিত্রের নাম।’

সে যাই হোক- তিনি কাইনাত অরোরা কিংবা হারলিম মান যেই হোন না কেন সুন্দরী নারীর হাতে বিনা অপরাধে ধরা দিতেও যে পুরুষের কোনও কার্পণ্য নেই এই বলিউড অভিনেত্রীর অছিলায় আবারও সেটির প্রমাণ মিলল।

bknews2010

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *