নেত্রকোণা জেলা ও সদর রেজেষ্ট্রি অফিস স্থানান্তরিত করে নতুন ভবন নির্মাণ -এর দাবী আজো অনুকূলে নয়

শ্রী অরবিন্দ ধর বর্তমানকন্ঠ ডটকম,২১ মার্চ ২০১৮: নেত্রকোণা জেলার উন্নয়ন সধনে সার্বিক তৎপর কর্মকান্ডের মধ্যে -জেলাবাসীর দীর্ঘদিনের দাবী বাস্তবায়নের মধ্যে জনস্বার্থে নেত্রকোণা জেলা ও সদর রেজেষ্ট্রি অফিস স্থানান্তরিত করে নতুন ভবন নির্মাণ আজো অনুকুল নয় এবং অপ্রাসঙ্গিক চিন্তা-চেতনায় হাবুডুবু খাচ্ছে।

ক্ষমতাধরদের ভিন্ন -ভিন্ন মতামতের জন্য সঠিক সিদ্ধান্তে পৌছে কাজ বাস্তবায়ন করা সম্ভব হচ্ছে না। এব্যাপারে নেত্রকোণার সর্বমহল সঠিক ধারনায় উপনিত যুবক্রীড়া উপমন্ত্রী আরিফখান জয় (এমপি) এবং প্রধান মন্ত্রীর ভারপ্রাপ্ত সচিব সাজ্জাদুল হাসান, এর আন্তরিক দৃষ্টি আকর্ষন না হলে এ দাবী বাস্তবায়ন হবে না। এ আলোচনায় মেতে উঠেছে সর্বস্থরের জনতা।

অফিস সূত্রে জানা যায় সদর উপজেলা পারলা মৌজায় -পারলা মাজারের দক্ষিন পাশে নদীর চরে – ৪ দাগে নিম্ন ভূমিতে স্থানান্তরিত করে নতুন ভবন নির্মাণের পায়তারা চালাচ্ছে এক স্বার্থান্বেষী কুচক্রী মহল। আবার তাদের সংঙ্গে ব্যাক্তিস্বার্থে যুক্তরয়েছে রেজেষ্ট্রি অফিসেরই জনৈক কর্মচারী। ঐ জমির মালিক মুজিবুরের স্ত্রীর জলির সাথে যোগসাজশে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলেও সমালোচনায় মেতেছে অফিসের লোকজন ও কর্মরত কর্মচারীগন।

শহরবাসীর মতামত পারলা গ্রামাঞ্চলে নদীর চরে নিম্ন জমিতে একাজ বাস্তবায়নে সরকারের দিগুন টাকা ব্যায় হবে, শহর থেকে অনেক দূরত্ব রয়েছে, নিরাপত্তার অভাব দেখা দিবে, দাতা -গ্রহিতাদের হয়রানিতে পরতে হবে। টাকা লেন -দেনের ব্যাপারে অনিশ্চয়তা দেখা দিবে। এ স্থানটি কখনই রেজেষ্ট্রি অফিস স্থানান্তরের উপযোগী নয়

এ প্রসঙ্গে দলিল লেখক সমিতির সভাপতি ও যুগ্ন সচিব আলহাজ্ব সৈযদ আব্দুর রাজ্জাক বাচ্ছু জানান – নেত্রকোণা জেলা রেজিষ্টার ও সদর রেজেষ্ট্রি অফিস সহ সদর মহাফেজখানা স্থানান্তরিত করে জন ভোগান্তি মুক্ত নিজস্ব ভবন তৈরীর জন্য জায়গা নির্ধারন, নতুন ভবনের দাবী শুধু জেলাবাসীর নয় জেলা শহরের দাতা -গ্রহিতা, দলিল লেখক সমিতি , কর্মকর্তা -কর্মচারী সহ সর্বমহলের ১ যুগের দাবী।

বিগত দিন থেকে যথাযথ কতৃপক্ষের মাধ্যমে বহুবিদ চেষ্ঠা তদবীর করে ও কোন সুফল পাচ্ছি না। পত্র -পত্রিকায় ও জন ভোগান্তি , কার্যালয়ের ক্ষতিগ্রস্থতা, বৃষ্টির পানিতে নষ্ট হয় বালাম বই, জরুরী কাগজ রেকর্ডপত্র। সরকারের অর্থনৈতিক ক্ষতিসাধন হচ্ছে অনেক।

তারপর ও কার্যকরী সুফল হচ্ছে না। বিশেষ করে সার্বিক সুযোগ -সুবিধা সহ সর্বমহলের -সর্বপরিসরে গ্রহন যোগ্য জায়গা শহরস্থ সর্বদিক মঙ্গল জনক নাগড়া মৌজায় উপস্থাপিত তিনটি অফিসের সংকুলানের উপযুক্ত নতুন ভবন নির্মাণের জন্য বহুদিন আগেই উল্লেখিত নাগড়া মৌজার কাগজ পত্র জমা দেওয়া রয়েছে। আবার পুনর্বার জমা দেওয়া হয়েছে। জনগন ও দলিলদাতা -গ্রহিতাদের শুধু নয় সর্বমহলের জন্য এ জায়গাটি গ্রহনযোগ্য বটে।

এ ব্যাপারে যুব ক্রীড়া উপ মন্ত্রী আরিফখান জয় এমপি ও প্রধান মন্ত্রীর ভারপ্রাপ্ত সচিব সাজ্জাদুল হাসান এবং নবাগত জেলা প্রশাসক নঈমউল ইসলাম -এর সু দৃষ্টি কামনায় -পি ডব্লু ডি অফিসের যোগাযোগে ভূমি একোয়ারের জন্য জেলাবাসী সর্বমহলের দাবী ও একান্ত প্রত্যাশা।

bknews2010

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *