খালেদা জিয়ার সাজা বৃদ্ধির পিটিশন বেআইনি: রিজভী

নিউজ ডেস্ক,বর্তমানকণ্ঠ ডটকম,বৃহস্পতিবার, ২৯ মার্চ ২০১৮:
বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সাজা বৃদ্ধির জন্য দুদক কর্তৃক রিভিউ পিটিশন দাখিল সম্পূর্ণরূপে বেআইনি বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী।

বৃহস্পতিবার (২৯ মার্চ)নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন।

রিজভী বলেন, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সাজা বৃদ্ধির জন্য দুদক কর্তৃক রিভিউ পিটিশন দাখিল সম্পূর্ণরূপে বেআইনি। কেননা এটি দুদকের আইনে নেই। উচ্চ আদালতের বিচারপতিদ্বয় বলেছেন, বিষয়টি আইনে আছে কী না সেটির ব্যাখ্যা প্রয়োজন। তাঁরা আরও বলেছেন, যেহেতু উভয়পক্ষই বিষয়টি নিয়ে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করছেন সেহেতু ব্যাপারটির ব্যাখ্যা প্রয়োজন।

তিনি বলেন, উচ্চ আদালতের বিচারকদ্বয় এ বিষয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন। তাহলে এটি অত্যন্ত সুস্পষ্ট যে, দুদক রিভিউ পিটিশনটি স্বপ্রণোদিত হয়ে করেনি বরং সরকারের নির্দেশেই দুদক এটি করেছে। উদ্দেশ্য হচ্ছে বেগম জিয়াকে অত্যুগ্র মাত্রায় হয়রানি করা। দুদক কর্তৃক এই রিভিউ পিটিশন দাখিল সম্পূর্ণরূপে হীন রাজনৈতিক ও উদ্দেশ্যমূলক।

নির্বাচনকালীন সরকার হবে বর্তমান সংসদে প্রতিনিধিত্বশীল সদস্যদের নিয়ে গতকাল আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের এমন বক্তব্যের সমালোচনা করে রিজভী বলেন, আপনি (কাদের) ঠিকই বলেছেন, কারণ এজন্যই আপনি কয়েকদিন আগে বলেছিলেন, সামনে নির্বাচনে আমাদের বিজয় নিশ্চিত এটি শুধু আনুষ্ঠানিকতা মাত্র। সুতরাং একতরফা নির্বাচন করতে আপনারা যে সবকিছু ঠিকঠাক করে রেখেছেন এটি কারো জানতে বাকি নেই। বর্তমান সংসদে তো জনগণের কোন প্রতিনিধি নেই। এরা গণতন্ত্রকে ‘দূরের তারা’ বানিয়েছেন। লুটপাটের ভাবধারায় অনুপ্রাণিত আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃতিপ্রাপ্ত স্বৈরাচারী সরকারের দ্বারা নির্বাচনকালীন সরকার গঠিত হলে তা হবে একদিকে যেমন অবৈধ তেমনি অন্যদিকে তাদের দ্বারা কখনোই সুষ্ঠু, অবাধ ও প্রতিযোগিতামূলক নির্বাচন হওয়া সম্ভব নয়।

বিএনপির এই মুখপাত্র হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, জনগণ বর্তমান ভোটারবিহীন সরকারের খায়েশ পূরণ হতে দেবে না। জনগণের স্মৃতির পর্দা ঝাঁপসা নয়, তারা জানে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির মতো বর্তমান সংসদের প্রতিনিধিদের নিয়ে অন্তবর্তীকালীন সরকার গঠিত হয়ে নির্বাচন হলে সেটি হবে সাম্প্রতিককালের সেরা প্রহসন। তাই এবার গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের অগ্রযাত্রা প্রতিহত করতে পারবে না বর্তমান গণবিরোধী সরকার।

সংবাদ সম্মেলনে রিজভী অভিযোগ করে বলেন, আজ দেশের কয়েকটি অঞ্চলে পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। নির্বাচনগুলোতে পূর্বের মতোই আওয়ামী চেতনার সন্ত্রাস অব্যাহত রয়েছে। নির্বাচনকে ঘিরে হত্যা, জখম, ভোটকেন্দ্র দখল, জালভোট প্রদান ও ব্যালট বাক্স ছিনতাইয়ের আগের সেই পুরনো রক্তাক্ত ঘটনারই পুনরাবৃত্তি ঘটছে। ইতিমধ্যে টাঙ্গাইলের কয়েকটি কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে। টাঙ্গাইল জেলাধীন ঘাটাইল উপজেলার সাগরদিঘী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের আগের রাতে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা গুপ্তবিন্দ্যাবন কেন্দ্রে ব্যালট পেপারে সীল মারার সময় ইউনিয়ন যুবদলের সহ-সভাপতি আব্দুল মালেক প্রতিবাদ করলে সন্ত্রাসীরা নির্মমভাবে তাকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলাধীন নাজিরহাট পৌর নির্বাচনকে কেন্দ্র করে উপজেলা বিএনপি’র আহবায়ক সারোয়ার আলমগীরের বাড়িতে হামলা এবং আহমদিয়া মাদ্রাসা ভোটকেন্দ্র থেকে বিএনপির এজেন্টসহ চারজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সবকিছু জেনেও নির্বাচন কমিশনের নিশ্চল, নির্বিকার ভূমিকার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদ, নিতাই রায় চৌধুরী, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ, সহ-দপ্তর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু, বেলাল আহমেদ, নির্বাহী কমিটির সদস্য আমিনুল ইসলাম প্রমুখ।

bknews2010

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *