সড়ক দুর্ঘটনা: ‘জনগণকে বিভ্রান্ত করছে সরকার’

নিউজ ডেস্ক,বর্তমানকণ্ঠ ডটকম,মঙ্গলবার, ৩ জুলাই ২০১৮: ঈদ যাত্রায় সড়ক দুর্ঘটনায় প্রকাশিত প্রতিবেদনে নিহত ও আহতের সংখ্যা বাড়িয়ে দেখানো হয়েছে- সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের এমন বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি। এবিষয়ে কর্তৃপক্ষ সত্য গোপন করে জনগণকে বিভ্রান্ত করছে বলে অভিযোগ করা হয়।

সোমবার (০২ জুলাই) সমিতির মহাসচিব মোজাম্মেল হক চৌধুরী স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে এই প্রতিবাদ জানানো হয়।

যাত্রী কল্যাণ সমিতির প্রতিবাদে বলা হয়, প্রকৃতপক্ষে ঈদযাত্রায় আমাদের সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিবেদনটি নিয়মিত কার্যক্রমের অংশ। যা বিগত ২০১৫ সাল থেকে নিয়মিত প্রকাশ করা হচ্ছে। আমাদের প্রকাশিত প্রতিবেদন সকল মহলে প্রসংশিত হয়েছে। আমরা দৃঢ়তার সাথে বলতে চাই প্রকাশিত প্রতিবেদনটি বস্তুনিষ্ট, নির্ভরযোগ্য ও সংঘটিত ঘটনার বাস্তবচিত্র।

এতে বলা হয়, আমরা কখনও দেশের মানুষকে বিভ্রান্ত করার জন্য বাড়িয়ে বা কমিয়ে কোন প্রতিবেদন প্রকাশ করি না। এক্ষেত্রে সব রকমের সাবধানতা, যাচাই-বাছাই করেই প্রতিবেদন তৈরি করা হয়। ইতিমধ্যে সরকারের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান আমাদের প্রতিবেদনসমূহ যাচাই-বাছাই করে কোন ত্রুটি পায়নি। ২০১৬ সালে আমাদের প্রকাশিত প্রতিবেদনে সড়ক দুর্ঘটনা ও নিহতের সংখ্যা হ্রাস পেয়েছে বলা হলে তা দেশের বেসরকারি সংগঠনের প্রতিবেদন হিসেবে উপস্থাপন করে সরকার বাহবা নিয়েছে।

এতে আরও বলা হয়, আমরা সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সহায়কশক্তি হিসেবে কাজ করে গণপরিবহনে শৃঙ্খলা ফেরানো, ভাড়া নৈরাজ্য, যাত্রী হয়রানি বন্ধ করা ও সড়ক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ভূমিকা রাখছি। দুঃখের বিষয় কর্তৃপক্ষ আমাদেরকে দূরে রেখে সত্য গোপন করে নিজেরাই জনগণকে বিভ্রান্ত করছে। আমরা রোগের চিকিৎসা করতে বলছি, কিন্তু তারা রোগের প্রকৃত চিকিৎসা না করে রোগ গোপন রাখতে চাইছে।

বিবৃতিতে অভিযোগ করে বলা হয়, সড়ক পরিবহন মন্ত্রণালয় বিভিন্ন সময়ে যাত্রী কল্যাণ সমিতিকে নিবন্ধনহীন বলে মিথ্যা তথ্য দিয়ে জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টির অপচেষ্টা করে দেশের একমাত্র যাত্রীস্বার্থ সংরক্ষণকারী সংগঠনকে দুর্বল ও প্রশ্নবিদ্ধ করে মালিক-শ্রমিকদের এজেন্ডা বাস্তবায়ন করছে। যাত্রী কল্যাণ সমিতি একটি সরকার নিবন্ধিত সংগঠন। নিবন্ধনকারী সংস্থার ওয়েবসাইটে সত্যতা মিলবে। আমরা দৃঢ়তার সাথে বলতে চাই যাত্রী কল্যাণ সমিতি ১৬ কোটি মানুষের স্বার্থ সংরক্ষণে সব সময় আপোষহীন ভূমিকা রাখবে।

এবিষয়ে সরকার, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়, গণমাধ্যম ও দেশবাসীর সহযোগিতা প্রত্যাশা করা হয়।

bknews2010

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *