দিনটা শুরু হয় এক কাপ চা দিয়ে

নিজস্ব প্রতিবেদক | বর্তমানকণ্ঠ ডটকম:

ঘুম থেকে উঠেই দিনটা শুরু হয় এক কাপ চা দিয়ে। আর সারাটা দিন তো রয়েছেই। শীত শীত বিকালে চা খাওয়ার হিসেবটাও যেন থাকে না। আর এই এক কাপ চায়ের সঙ্গেই যদি স্বাস্থ্যসম্মত কিছু উপাদান যোগ করা যায় তাহলে মন্দ কি? ঘরোয়া কিছু উপাদান মিশিয়ে নিলে স্বাস্থ্য আর স্বাদ দুটোই কিন্তু ভালো থাকবে!

মধু এবং চা
চায়ের সঙ্গে মধু এ তো আমরা সবাই জানি। কিন্তু এর অনেক উপকারিতাই আমাদের অজানা। চিনির বদলে মধু শুধু আপনার ডায়েটেই সহায়তা করবে না, একইসঙ্গে এটি শরীরের কার্বোহাইড্রেটের চাহিদাও পূরণ করবে। আর ঠাণ্ডা, গলাব্যথার সমস্যার সব থেকে সহজ ওষুধও কিন্তু এই মধু। এছাড়াও এই শীতে ত্বকের আর্দ্রতা, নমনীয়তা ধরে রাখার পাশাপাশি উজ্জ্বলতাও বাড়াবে প্রাকৃতিক এই উপাদানটি।

দারুচিনি চা
চায়ের পাতার সঙ্গে দারুচিনির কয়েকটি টুকরো সেদ্ধ করে নিন। এতে শুধু সুন্দর ঘ্রাণই আসবেনা বরং আপনার বেশ কিছু উপকারিতাও হবে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির পাশাপাশি ক্যানসার প্রতিরোধ, হাত-পায়ের জ্বালাপোড়া রোধ থেকে শুরু করে ঠাণ্ডা-কাশি নিরাময় করে এই দারুচিনি। এমনকি প্রতিদিন আমাদের ত্বকের যে টিস্যুগুলোর ঘাটতি দেখা দেয়, সেগুলোও পূরণ করে এই দারুচিনি।

লেবু চা
ভিটামিন-সি সব সময়েই শরীর এবং ত্বকের যেকোনো ক্ষত সারাতে উপকারি। একইসঙ্গে রক্তের কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে এবং ওজন কমাতেও ভিটামিন-সি প্রয়োজনীয়। তাই প্রতিদিনের এক কাপ চায়ে কয়েক চামচ লেবুর রস মিশিয়ে নিন! স্বাদ এবং স্বাস্থ্যের জন্য এর সঙ্গে মধুও মিশিয়ে নিতে পারেন।

পুদিনা চা
পুদিনা পাতার গন্ধ যেন এক ধরনের সতেজতা এনে দেয়। এর যে রোসম্যারিনিক অ্যাসিড তা আমাদের ঠাণ্ডা, চর্মরোগ, অ্যাসিডিটি, মাথা ব্যথা রোধ করে। তাই গরম চায়ে কয়েকটি পুদিনা পাতা ফেলে দিন। এটি আপনার হজমশক্তিও বাড়াতে সহায়তা করবে।

মাখন এবং চা
মাখনে রয়েছে অনেক পুষ্টিগুণ। তাই একে বলা হয় ‘পাওয়ার হাউজ’। তাই দুধের চায়ের সঙ্গে ১ থেকে ২ টেবিল চামচ মাখন মিশিয়ে নিতে পারেন। যা আপনার খাদ্য হজমেও সহায়তা করবে।

মরিচ চা
হজম শক্তি বৃদ্ধি এবং ক্যালসিয়াম এর পরিমাণ ঠিক রাখতে মরিচ চায়ের জুড়ি মেলা ভার। রঙ চায়ে লেবুর রস আর অর্ধেক মরিচ মিশিয়ে নিয়েই তৈরি করতে পারেন এই চা। এটি আপনার রক্তের প্রবাহ স্বাভাবিক রাখার পাশাপাশি শরীরের মেটাবলিজম বৃদ্ধিতে সহায়তা করে।

ভ্যানিলা চা
অনেকেই চায়ে একটু ভিন্ন স্বাদ আনতে ভ্যানিলা যোগ করেন। এর উপকারিতাও কিন্তু কম নয়। ভ্যানিলায় রয়েছে অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল উপাদান, যা ত্বক এবং চুল ঠিক রাখার পাশাপাশি ক্যানসার প্রতিরোধেও সহায়তা করবে এই ভ্যানিলা চা। তাই চায়ের সঙ্গে আধা টেবিল চামচ ভ্যানিলা এসেন্স দিতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *