‘অভিযোগ না করে তরুণদের সমস্যা সমাধানে এগিয়ে আসার আহ্বান’

তরুণদের অভিযোগ না করে সমস্যা সমাধানে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন আন্তর্জাতিক মানসিক ও অটিজম বিশেষজ্ঞ সায়মা ওয়াজেদ হোসেন। বুধবার(২৬ ডিসেম্বর) রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে ‘তারুণ্যের শক্তি বাংলাদেশের সমৃদ্ধি’ শীর্ষক আলোচনায় তরুণদের প্রতি তিনি এই আহ্বান জানান।

এ সময় তিনি নির্বাচন নিয়ে অভিযোগ না করে অংশগ্রহণের মাধ্যমে সমস্যা সমাধানেরও আহ্বান জানান।

সায়মা ওয়াজেদ হোসেন আরও বলেন, ‘অভিযোগ করতে সবাই পারে কিন্তু পরিবর্তন করতে কিন্তু সবাই পারে না। তাই পরিবর্তনে অংশগ্রহণ করতে হবে। সুতরাং তরুণদের জন্য সবচেয়ে জরুরি বিষয় হচ্ছে দেশের পরিবর্তনে অংশগ্রহণ করা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কোথায় কি হচ্ছে সেটা কিন্তু আমরা সবাই জানতে পারি। কিন্তু সেটা যাচাই করার জন্য আমাদের শিক্ষা দরকার। এজন্য আমাদের সবার ইনভেস্টিগেট করতে হবে কোনটা সত্য কোনটা মিথ্যা, সেটা বুঝেই সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

আওয়ামী লীগের নির্বাচনি ইশতেহারের ২১টি বিশেষ অঙ্গীকার নিয়ে তরুণদের মুখোমুখি হন দেশবরেণ্য ব্যক্তিরা। গবেষণা সংস্থা সিআরআই-এর আয়োজনে তারা গত দশবছরে বাংলাদেশের অগ্রগতি তুলে ধরেন। দেশের বিশিষ্ট ব্যক্তিরা বলেন, ‘তরুণদের শিক্ষিত করতে পারলেই দেশ সত্যিকার অর্থে উন্নত হবে। শুধু শহরের উচ্চ পর্যায় নয়, তৃণমূলেও নারীর ক্ষমতায়ন হয়েছে বলে মত দেন তারা।’

আলোচনা সভায় শিক্ষাবিদ ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেন, ‘আমাদের দেশের বৈজ্ঞানিকরা বিভিন্ন রকম নতুন নতুন জিনিস আবিষ্কার করতে পারছে এর কারণ হচ্ছে এর জন্য অর্থায়ন করা হচ্ছে।’ এছাড়া আওয়ামী লীগের ইশতেহারে শিক্ষাখাতে সবচেয়ে বেশি বরাদ্দ দেয়া হবে বলে উল্লেখ করা হয়েছে এজন্য খুব আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা করছেন বলেও উল্লেখ করেন ড. মুহাম্মদ জাফর ইকবাল।

আলোচনা সভায় বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্ণর আতিউর রহমান বলেন, ‘২০২০ সালে আমাদের যে মাথাপিছু আয় হবে, সে আয়ের দিক থেকে ভারতকেও আমরা অতিক্রম করে যাব। আইএমএফ ২০১৮ সালের ইনক্লুসিভ ডেভেলপমেন্টের একটা সূচক দিয়েছে, তাতে বাংলাদেশের ক্রমমান হলো ৩৪তম অবস্থানে। এতে ভারতের অবস্থান ৬২, পাকিস্তানের অবস্থান আরও পরে।’

পরে ‘তারুণ্যের শক্তি বাংলাদেশের সমৃদ্ধি’ শীর্ষক আলোচনায় তরুণদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন দেশের বিশিষ্টজনরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *