চেয়ারম্যানের পিটুনির পর দুই যুবক নিখোঁজ

ময়মনসিংহ,বর্তমানকণ্ঠ ডটকম : ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার মাওহা এলাকায় দুই যুবককে খুঁটিতে বেঁধে বেধড়ক পিটিয়ে ছিলেন এক ইউপি চেয়ারম্যান। এ ঘটনার পর থেকে ওই দুই যুবকের কোন খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না বলে পরিবারের অভিযোগ।

জানা যায়, গত রবিবার (৪ জুন) উপজেলার মাওহা বাজার এলাকায় মাদক ব্যবসায়ী সন্দেহে খুঁটিতে বেঁধে চেয়ারম্যানের পিটুনির পর দুই যুবক নিখোঁজ রয়েছেন। পুলিশ এলাকায় গিয়ে তাদের কোনো সন্ধান করতে পারেনি। ওই দুই যুবকের পরিবারের বরাত দিয়ে বিষয়টি গৌরীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দেলোয়ার আহাম্মদ সাংবাদিকদের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এর আগে রবিবার বিকালে রুকন (২২) ও দীপু (২৩) নামের ওই দুই যুবককে খুঁটির সঙ্গে বেঁধে বেধড়ক পেটান স্থানীয় মাওহা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান রমিজ উদ্দিন স্বপন।

পরে মারধরের বেশ কিছু ছবি বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। এতে খুঁটির সঙ্গে বেঁধে দুই যুবককে লাথি মারতে ও পেটাতে দেখা যায়। পেটানোর পর ২৪ ঘণ্টার মধ্য দুজনকে এলাকা ছাড়ার নির্দেশও দেন ওই চেয়ারম্যান।

জানা গেছে, চেয়ারম্যান রমিজ উদ্দিন স্বপন গৌরীপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক এবং উপজেলা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সমিতির সদস্য সচিব। তবে ওই দুই যুবককে নির্যাতনের সময় ছবি তুলেছিলেন ফারুক হাসান নামের এক ব্যক্তি। সেদিন সন্ধ্যায় ফারুক হাসান তার ফেসবুকে নির্যাতনের সাতটি ছবি পোস্ট করেন। চেয়ারম্যান রমিজ উদ্দিন স্বপন সেই ছবিগুলো নিজের ফেসবুক টাইমলাইনে শেয়ার করেন।

এর আগে ওই দিন বিকেলে চেয়ারম্যান রমিজ উদ্দিন স্বপন ওই দুই যুবককে ধাওয়া করে ধরে এনে খুঁটির সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন করেন। কিন্তু তাদের কাছে কোনো মাদক পাননি বলে রমিজ উদ্দিন নিজেই শিকার করেছেন।


এ বিষয়ে গৌরীপুর থানার ওসি দেলোয়ার আহাম্মদ বলেন, সাংবাদিকদের কাছে ঘটনাটি জানার পর এলাকায় পুলিশ পাঠিয়েছিলাম। কিন্তু নির্যাতিত ওই দুই যুবকের কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি।

এর আগে গত মঙ্গলবার (৬ জুন) রাতে ওসি বলেছিলেন, নির্যাতিত ওই দুই যুবকের বিরুদ্ধে গৌরীপুর থানায় মাদকের কোনো মামলা বা অভিযোগ নেই।

কিন্তু বুধবার (৭ জুন) বিকালে বলেছেন, রুকনের বিরুদ্ধে ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে একটি মাদকের মামলা হয়েছিল। সেই মামলায় বর্তমানে জামিনে আছে রুকন। তবে দীপুর বিরুদ্ধে কোনো মামলা বা অভিযোগ নেই বলে জানান ওসি।

ওসি আরও জানান, নির্যাতনের ঘটনায় ওই দুই যুবকের পরিবারের পক্ষ থেকে এখনো কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি।

FacebookTwitterDiggStumbleuponRedditLinkedinPinterest
Pin It
এই পাতার আরো খবর -