সেপটিক ট্যাংকে স্বামী-স্ত্রীর লাশ

টাঙ্গাইল,বর্তমানকণ্ঠ ডটকম: জেলার সদর উপজেলার নিজ বাড়ির সেপটিক ট্যাংক থেকে স্বামী-স্ত্রীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

উদ্ধারকৃতরা হলেন অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক অনিল কুমার দাস (৬৮) ও তার স্ত্রী কল্পনা রানী দাস (৬০)।

বৃহস্পতিবার (২৭ জুলাই) দুপুরে উপজেলার রসুলপুর গ্রামের বাড়ি থেকে তাদের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। অনিল কুমার স্থানীয় বাছিরুন্নেছা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক ছিলেন বলে জানা গেছে।

পূর্ব শত্রুতার জের ধরে এ হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হতে পারে বলে স্থানীয় লোকজন ধারণা করছে। তবে এটি হত্যা না আত্মহত্যা তাৎক্ষণিকভাবে এ ব্যাপারে বিস্তারিত কিছু জানা যায়নি।

টাঙ্গাইল সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাজমুল হক ভূঁইয়া সংবাদমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। স্থানীয়দের বরাত দিয়ে তিনি জানান, ওই বাড়িতে অনিল-কল্পনা দম্পতিই থাকতেন। তাদের একমাত্র মেয়ে যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী, একমাত্র ছেলে ঢাকায় একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকুরি করেন।

বুধবার রাতেও ওই দম্পতির গলার আওয়াজ শুনেছিল আশপাশের বাসিন্দারা। কিন্তু বৃহস্পতিবার সকালে প্রতিদিনের মতোই দুধ দিতে গিয়ে ওই বাসার ঘরের দরজা-জানালা খোলা পান দুধওয়ালা।

বিষয়টি তিনি প্রতিবেশীদের জানান। এর পর প্রতিবেশীরা স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যান রাজকুমার সরকারকে ঘটনার বিবরণ জানালে তিনি ঘটনাস্থলে এসে পুলিশকে খবর দেন।

খবর পেয়ে পুলিশ সেপটিক ট্যাঙ্কের ভেতর থেকে ওই স্বামী-স্ত্রীর লাশ উদ্ধার করে। ওসি আরও জানান, লাশের গলায় রশি দিয়ে ইট বাঁধা ছিল। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহগুলো মর্গে হবে। এদিকে শিক্ষক অনিল কুমার দাসের ভাই স্বপন সৌমিত্র গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, তার ভাইয়ের কোনও শত্রু ছিল না। কিন্তু কী করে কী হয়ে গেল তা কিছু বুঝতে পারছেন না তারা।

FacebookTwitterDiggStumbleuponRedditLinkedinPinterest
Pin It
এই পাতার আরো খবর -