পাকস্থলীর ক্যানসার সারাতে টমেটো

নিউজ ডেস্ক,বর্তমানকণ্ঠ ডটকম: টমেটো এমন এক সব্জি যা কাঁচাও যেমন খাওয়া হয়, রান্নাতেও তেমন ব্যবহার করা হয়। চাইনিজ, কন্টিনেন্টাল, আমিষ-নিরামিষ সব রকম রান্নাতেই টমেটো বেশ অপরিহার্য। দেখতে লাল ও সুন্দর হওয়ার কারণে স্যালাদ, গার্নিশিং-এর জন্যও টমেটো বেশ জনপ্রিয়। এজন্য বেশি বেশি টমেটো খাওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন চিকিত্সকরা। নতুন এক গবেষণা বলছে, পাকস্থলীর ক্যানসারের মতো ভয়াবহ রোগের ঝুঁকি কমাতে পারে এই টমেটো।

হার্টের সমস্যা, রক্ত পরিষ্কার রাখা, রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করা, দৃষ্টিশক্তি উন্নত করার মতো টমেটোর নানা গুণের কথা বিভিন্ন সময়ে বলেছেন গবেষকরা। কিন্তু সরাসরি ক্যানসার সারাতে টমেটোর গুণের কথা কখনই বলেননি তারা। এখন টমেটোর রস পাকস্থলীতে ক্যানসার কোষের বৃদ্ধি ও ছড়িয়ে পড়া রুখে দিতে পারে বলে জানাচ্ছেন গবেষকরা।

ইতালির অঙ্কোলজি রিসার্চ সেন্টার অব মার্কোগিলানোর গবেষক ড্যানিয়েলা ব্যারন বলেন, “টমেটোতে থাকা লাইকোপেনের অ্যান্টিটিউমরাল গুণ রয়েছে। তবে সেটাই একমাত্র নয়। টমেটোকে ক্যানসার রোধের সম্পূর্ণ ওষুধ হিসেবে দেখা উচিত। সান মারজানো ও করবারিনো টমেটোর এই গুণ সবচেয়ে বেশি বলে দাবি গবেষকদের।

ইতালির সিয়েনা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক অ্যান্তনিও জিওরদানোর মতে, টমেটো এতটাই উপকারী যে ক্যানসারের ডাক্তারি চিকিত্সার পাশাপাশি টমেটো রস চিকিত্সার গুরুত্বপূর্ণ অংশ হতে পারে।

এই মুহূর্তে বিশ্বে যে সব ক্যানসার সবচেয়ে বেশি মাত্রায় ছড়িয়ে পড়েছে তার মধ্যে চতুর্থ স্থানে রয়েছে পাকস্থলীর ক্যানসার। জেনেটিক ফ্যাক্টর, হেলিকোব্যাকটর পাইলোরি ইনফেকশন, অস্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস, অতিরিক্ত লবন ও স্মোকড খাবার খাওয়ার অভ্যাসের কারণে পাকস্থলীতে ক্যানসার হতে পারে।

ভূমধ্যসাগরীয় ডায়েটের একটা বড় অংশ জুড়ে রয়েছে টমেটো। তাই টমেটো সম্পর্কে এই গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ক্যানসারের প্রকোপ কমাতে সাহায্য করবে বলে মনে করছেন গবেষকরা। -সূত্র : সেলুলার ফিজিওলজি জার্নালে প্রকাশিত গবেষণা রিপোর্ট।

FacebookTwitterDiggStumbleuponRedditLinkedinPinterest
Pin It
এই পাতার আরো খবর -