খুলনায় মাসব্যাপী একুশে বইমেলা শুরু

খুলনা,বর্তমানকণ্ঠ ডটকম: ‘উন্নত জীবনের জন্য বই’ এ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে খুলনায় মাসব্যাপী একুশে বইমেলা শুরু হয়েছে।

বুধবার (০১ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে মহানগরীর বয়রাস্থ বিভাগীয় সরকারি গণগ্রন্থগার প্রাঙ্গণে এ মেলার উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান।

অনুষ্ঠানে মসিউর রহমান বলেন, ‘বাঙালির ভাষা আন্দোলন ছিল পৃথক মূল্যবোধ ও সাংস্কৃতিক চেতনার প্রতিফলন। যে কোন সমাজ গড়ে ওঠার পিছনে ভাষার অবদান গুরুত্বপূর্ণ।’

তিনি বলেন, ‘অন্য দেশ অন্য সমাজের সাথে যত সম্পর্ক তৈরি হবে ভাষা ততই সমৃদ্ধ হবে। নতুন শব্দ উপকরণ যুক্ত না হলে ভাষার উন্নতি হয় না। ভাষা চিন্তা ও অনুভূতিকে ধারণ করে, তাই ভাষা ধর্মেরও বাহন। ধর্মকে সাধারণ মানুষের কল্যাণে কাজে লাগাতে হবে। এর আক্ষরিক দিক নয় বরং অন্তর্নিহিত মর্ম অনুবাধন করতে হবে। তবেই সন্ত্রাসমূলক কাজ এবং মানবতাবিরোধী চেতনাকে প্রতিহত করা সম্ভব হবে।’

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন খুলনা জেলা প্রশাসক নাজমুল আহসান। বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এসএম শফিউল্লাহ ও খুলনা সরকারি মহিলা কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ প্রফেসর সালমা পারভীন।

শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন রবি আজিয়াটা লিমিটেডের জেনারেল ম্যানেজার মারুফ হোসেন চৌধুরী ও পুস্তক প্রকাশনা ও বিক্রেতা সমিতি খুলনা শাখার সভাপতি মো. আলমগীর। স্বাগত বক্তৃতা করেন বিভাগীয় সরকারি গণগ্রন্থাগারের উপ-পরিচালক ও মেলা পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব হরেন্দ্রনাথ বসু।
 
মেলা পরিচালনা কমিটি সূত্রে জানা যায়, ২০০৫ সাল থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত স্থানীয় সাহিত্য সংসদ বয়রা’র উদ্যোগে বিভাগীয় সরকারি গণগ্রন্থাগার প্রাঙ্গণে একুশে বইমেলা উদযাপন করা হয়। পরবর্তীতে ২০১০ সাল থেকে খুলনা জেলা প্রশাসন এ মেলা আয়োজন করে আসছে। এবছর ঢাকাসহ বিভাগের অন্যান্য জেলা থেকে পুস্তক ব্যবসায়ীরা এ বই মেলায় স্টল বরাদ্দ নিয়েছে।
 
উল্লেখ্য, মাসব্যাপী বইমেলা প্রতিদিন বিকেল ৪টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে। দর্শক দৃষ্টি কেঁড়ে নিতে সাজানো হয়েছে একুশে বইমেলা প্রাঙ্গণ। স্টল, মঞ্চ তৈরি ও আলোকসজ্জা করা হয়েছে। এবারের বইমেলা প্রাঙ্গণে থাকবে নিচ্ছিদ্র নিরাপত্তার ব্যবস্থা। নিরাপত্তার জন্য মেলা প্রাঙ্গণে স্থাপন করা হয়েছে ক্লোজ সার্কিট (সি.সি) ক্যামেরা। মেলায় ৮১টি স্টল রয়েছে।
 
মেলামঞ্চে প্রতিদিন প্রবন্ধ ও কবিতা পাঠ, আলোচনা সভা, নতুন লেখকদের বইয়ের মোড়ক উন্মোচন এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন থাকবে। স্থানীয় ২৫টি স্কুল তাদের শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে ধারাবাহিকভাবে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করবে।

     
 
FacebookTwitterDiggStumbleuponRedditLinkedinPinterest
Pin It

বাই মেলার আরো খবর -