‘একুশে বই মেলায় নতুন প্রজন্মের লেখক সানজিদ খান’

রায়হান সরকার রবিন,বর্তমানকণ্ঠ ডটকম: লেখক, কবি, সুরকার ও গীতিকার, বর্তমান নতুন প্রজন্মদের নিয়ে কিছু একটা করার চেষ্টা করছেন। পেশায় ছাত্র যার নাম সানজিদ খান। পড়াশোনা করছেন জার্মান-বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটিতে বিএসসি ইঞ্জিনিয়ার কম্পিউটার সাইন্সে। টিউশনীর টাকা আর প্রতিমাসে বাবা মায়ের পাঠানো দেওয়া মাসিক খরচ বাঁচিয়ে অতিরিক্ত যে টাকা থাকে এই টাকা নিজে খরচ না করে জমানো টাকা দিয়ে শুরু করেছেন সুর, গান, ও লেখালেখী। এবারের একুশের বই মেলায় নবীন এই লেখক নুতন প্রজন্মদের জন্য লিখেছেন একটি গীতিকাব্যের বই। নাম দিয়েছেন মানবের তরে গীতিকাব্য-জীবনের গীতালি। ১০০টি কবিতা ও গান নিয়ে এই গীতিকাব্য। একুশে বই মেলায় কাশবন প্রকাশনার স্টলে বইটি পাওয়া যাচ্ছে। আগামী ১৪ ফেব্র“য়ারি লেখক সানজিদ খান ও কাশবন প্রকাশনার উদ্যোগ্যে বইটির মোড়ক উন্মোচন হবে বলে শনিবার বইটির লেখক সানজিদ খান জানিয়েছেন। মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে কবি, সাহিত্যিক, লেখক ও খ্যাতিমান গুনী শিল্পীরা উপস্থিত থাকবেন বলে জানিয়েছেন।
জানা গেছে, সানজিদ খানের পিতার নাম পারভেজ আলী খান এবং মাতার নাম আফরোজা খাতুন। গ্রামের বাড়ি টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলা সদরের পৌরসভার বাইমহাটি প্রফেসরপাড়া গ্রামে। শনিবার সানজিদ খান মির্জাপুরে এসে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, শিশুকাল থেকেই তার গান, নাটক, কবিতা ও লেখালেখির প্রতি প্রচুর আগ্রহ ছিল। প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক কৃতিত্বের সঙ্গে পাশ করার পর উচ্চ শিক্ষার জন্য ভর্তি হন জার্মান-বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটির বিএসসি কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার সাইন্সে। ১০০টি গান ও সুর নিয়ে এবারের বই মেলায় তার নিজের লেখা মানবের তরে গীতিকাব্য-জীবনের গীতালি বের হয়েছে। বইটি পাঠকদের হৃদয়ে স্থান দখল করে নেওয়ায় ব্যাপক বিক্রি হচ্ছে। এর আগে কবিতার জলসাসহ বেশ কয়েকটি বই প্রকাশিত হয়েছে। তার এই অসামান্য সুন্দর ও সাবলিল ভাষায় বই লেখালেখির কারনে বাংলাদেশ কবি সংসদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এক অনুষ্ঠানে তাকে পুরস্কৃতও করেছেন। এছাড়া অন্যান্য অনুষ্ঠানেও পেয়েছেন পুরষ্কার। সবার সহযোগিতা পেলে নবীন এই লেখক আরও এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন।

     
 
FacebookTwitterDiggStumbleuponRedditLinkedinPinterest
Pin It

বাই মেলার আরো খবর -