আমি বাঁচতে চাই-মাথা গুজার ঠাই চাই !

সৈয়দ মুন্তাছির রিমন : সাংবাদিক ভাইয়েরা আপনারা আমার জীবন বৃত্তান্ত লিখেন- আমি পুত্রকে নিয়ে বাঁচতে চাই, মাথা গুজার ঠাই চাই। আমার ৪ বছরের পুত্র সন্তান আলবীনকে নিয়ে অসহায় হয়ে জীবন কাটাচ্ছি। স্বামী জীবন্ত থেকেও নেই। পরিচয় গোপন রেখে আমাকে বিবাহ করে সে আবার অন্য মেয়ের সাথে সংসার করে ছেলে সন্তান জন্ম দিয়েছে। আমাদের ২ বেলা খাবার জুটেনা। মেয়ে হয়ে জন্ম গ্রহন করায় কেউ কাজ দিতে চায় না। সমাজের কিছু অসৎ লোক খারাপ কাজের কতা বলে। এমনিতে নুন আনতে পানতা ফুরায় যার (স্বামী বাবুল) তার ২ সংসার চালানোর মত ক্ষমতা নেই। ১ম স্ত্রীর ১মেয়ে ও ২পুত্র সন্তান রয়েছে। কত কষ্টের জীবন। এভাবেই দরগা মহল্লাস্থ দীর্ঘ ১৬ বছর ধরে বসবাস কারী এক অসহায় আলেয়া সমাজের সর্বস্তরের লোকের কাছে অসহায়ত্ব প্রকাশ করে ভাল হয়ে বাঁচতে করুন আকুতি জানিয়ে সাহায্য কামনা করলেন। জানা যায়- বি-বাড়ীয়া জেলার সাবাজ পুর গ্রামের ৫বোন ৪ ভাইয়ের মধ্যে আলেয়া খাঁতুন সকল বোনের বড় ছিল। মৌলভীবাজার দরগামহল্লাস্থ এলাকায় একটি কলোনিতে মৃত মানিক আহমদ এর পুত্র ফয়সল আহমদ ওরফে মোঃ বাবুল মিয়া‘র সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। সেখানে শিশু পুত্র আলবীন জন্ম গ্রহন করে। শুরুতেই ছোট শিশু পুত্র লালন-পালন ও সংসারের ব্যয়ভার বহন করতে ক্লান্ত হয়ে পড়েছে সে। তাই আলেয়া সমাজের বৃত্তশালীদের কাছে তার ফরিয়াদ আমি শিশু পুত্রকে নিয়ে বাঁচতে চাই, মাথা গুজার ঠাই চাই।

2017-05-27-12-26-09নিউজ ডেস্ক,বর্তমানকণ্ঠ ডটকম: ঢাকা থেকে সিলেটগামী বিজি ১৬০৫ ফ্লাইটে ১১৫ জন যাত্রীর মধ্যে ৩০ জনই শিশু-কিশোর। এরা কেউ উচ্চবিত্ত পরিবারের সন্তান নয়। অনাথ, সুবিধা বঞ্চিত। সমাজ সেবা অধিদফতে পরিচালিত শিশু পরিবারের (নিবাস) এই সদস্য। তবু এরাই ছিল ফ্লাইটের বিশেষ যাত্রী। শনিবার (২৬ মে) সকাল সাড়ে সাতটায় এরা যখন উড়োজাহাজে ওঠে,...
2017-05-27-12-26-09নিউজ ডেস্ক,বর্তমানকণ্ঠ ডটকম: ঢাকা থেকে সিলেটগামী বিজি ১৬০৫ ফ্লাইটে ১১৫ জন যাত্রীর মধ্যে ৩০ জনই শিশু-কিশোর। এরা কেউ উচ্চবিত্ত পরিবারের সন্তান নয়। অনাথ, সুবিধা বঞ্চিত। সমাজ সেবা অধিদফতে পরিচালিত শিশু পরিবারের (নিবাস) এই সদস্য। তবু এরাই ছিল ফ্লাইটের বিশেষ যাত্রী। শনিবার (২৬ মে) সকাল সাড়ে সাতটায় এরা যখন উড়োজাহাজে ওঠে,...
     
 
FacebookTwitterDiggStumbleuponRedditLinkedinPinterest
Pin It
এই পাতার আরো খবর -