‘পুঁজিবাদী স্বার্থেই মিয়ানমারের পক্ষে চীন-রাশিয়া’

নিউজ ডেস্ক,বর্তমানকণ্ঠ ডটকম: রোহিঙ্গা ইস্যুতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমেরিটাস অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেছেন, ‘পুঁজিবাদী স্বার্থকে বহাল রাখতে ভারতের মতো চীন-রাশিয়াও নিপীড়িত রোহিঙ্গাদের পাশে না দাঁড়িয়ে মিয়ানমারের পক্ষ নিয়েছে। অথচ এই ভারতই একাত্তরে আমাদের দেশের এক কোটি মানুষকে আশ্রয় দিয়েছিল, মুক্তিযুদ্ধে সহযোগিতা করেছিল। বিশ্বমানবতার জয়গান গেয়েছিল।’

বুধবার (০৪ অক্টোবর) দুপুর ১২টার দিকে রাজধানীর পুরানা পল্টনে মুক্তি ভবনের মৈত্রী মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। অক্টোবর বিপ্লবের শতবর্ষ উপলক্ষে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে অক্টোবর বিপ্লব শতবর্ষ উদ্‌যাপন জাতীয় কমিটি।

একাত্তরের হানাদার, বাংলাদেশের ধর্ষক ও মিয়ানমারের সেনাসদস্য—সবাই একই আদর্শে দীক্ষিত বলেও মন্তব্য করেন এই শিক্ষাবিদ।

সংবাদ সম্মেলনে কমিটির আহ্বায়ক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী তাঁর পাঠ করা লিখিত বক্তব্যে বলেন, ‘সারা দুনিয়ায় শতকরা ৫ ভাগ লোক পুঁজির মালিক। ৯৫ ভাগিই বঞ্চিত। পুঁজিবাদী বিশ্বে টাকাই সব, মানবিকতা মূলহীন।’

একাত্তরের স্মৃতিচারণ করে তিনি বলেন, ‘ঠিক যেন একাত্তরে বাঙালিদের মতোই মিয়ানমারের রোহিঙ্গারা এখন তাদের দেশের সেনাদের হাতে গণহত্যা নির্যাতনের শিকার হচ্ছে।’ এসময় তিনি পুঁজিবাদের বিরুদ্ধে শতবর্ষ আগে সংঘটিত অক্টোবর বিপ্লবের ভূমিকার কথা তুলে ধরেন।

রুশ সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবের বৈশ্বিক গুরুত্ব ব্যাখ্যা করে তিনি বলেন, ‘শতবর্ষ আগে মহামতি লেনিনের নেতৃত্বে রুশ বিপ্লব পুঁজিবাদকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে মানবিক বিশ্ব গড়ে তোলার পথ রচনা করেছিল। যার তাৎপর্য আজকের প্রেক্ষাপটে আরও গুরুত্ববহ।’

শতবর্ষ উদ্‌যাপন জাতীয় কমিটির আরেকজন আহ্বায়ক ভাষাসংগ্রামী আহমদ রফিক ও কমিটির সমন্বয়ক হায়দার আকবর খান রনো ছাড়াও সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম, বাসদের (মার্কসবাদী) কেন্দ্রীয় নেতা শুভ্রাংশু চক্রবর্তী, জাতীয় গণফ্রন্টের আহ্বায়ক টিপু বিশ্বাস, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি ও বাসদের কেন্দ্রীয় নেতা বজলুর রশীদ ফিরোজ প্রমুখ।

উল্লেখ্য, রুশ শতবর্ষ উদযাপন উপলক্ষে সারা দেশে প্রস্তুতি গ্রহণ করছে সমাজতান্ত্রিক বাম শক্তিগুলো। এরই প্রধান অংশ হিসেবে আগামী শুক্রবার বিকেল ৩টায় রাজধানীর শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের সামনে শতবর্ষ উদ্বোধনী সমাবেশ করা হবে। কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সমাবেশ ও লাল পতাকা মিছিল হবে আগামী ৯ নভেম্বর।

FacebookTwitterDiggStumbleuponRedditLinkedinPinterest
Pin It
এই পাতার আরো খবর -