সংঘাতময় পাহাড়ে শান্তি কত দূর?

নিউজ ডেস্ক,বর্তমানকণ্ঠ ডটকম : সাম্প্রতি পাহাড়ে নতুন করে সংঘাতময় পরিস্থিতি সৃষ্টি হওয়ায় সেখানে শান্তি প্রতিষ্ঠার বিষয়টি ফের সামনে এসেছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও মানবাধিকার কমিশনের সদস্য মেঘনা গুহঠাকুরতা বলেন, সেখানে আস্থা বাড়ানোর জন্য প্রথমেই প্রয়োজন লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি করা। যে চুক্তি অনুযায়ী সেনা ক্যাম্প প্রত্যাহার করার কথা ছিলো সেটি এখনো হয়নি। পাহাড়ে শান্তি আসছেনা কেন? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, স্থানীয় প্রশাসনকে জনমূখী হতে হবে, না হলে সেখানে শান্তি আসবে না।

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার রাতে স্থানীয় এক যুবলীগ কর্মীর লাশ পাওয়ার পর সেখানে উত্তেজনা দেখা দেয়। এর পর গত শুক্রবার নিহতের জানাজার পর স্থানীয় বাঙালিরা মিছিল নিয়ে পাহাড়িদের বাড়িঘরে আগুন ধরিয়ে দেয়। এই ঘটনার পর অজ্ঞাতনামা ৩০০ জনকে আসামী করে মামলা করে স্থানীয় পুলিশ। এই মামলায় ৭জন বাঙালিকে আটকও করা হয়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রাঙামাটির জেলা প্রশাসক মোঃ মাঞ্জারুল মান্নান বলেন, ঘটনার পর প্রশাসনের কর্মকর্তারা দু'পক্ষকে নিয়ে কয়েক দফা বৈঠক করেছেন। তারা দু'পক্ষের মধ্যে আস্থা ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করছেন। আমাদের মূল উদ্দেশ্য হলো, সেখানে উভয় পক্ষের মধ্যে আস্থা বাড়ানো। পাহাড়ি ও বাঙ্গালি সেখানে বহু বছর ধরে একসাথে বসবাস করছে। এখন সেখানে যে সংঘাতময় পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে, সেটি যেনো ভবিষ্যতে আর না থাকে।

এদিকে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি অভিযোগ করেছে যে, স্থানীয় আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ছত্রছায়ায় এই হামলা হয়েছে। হামলার ভয়ে যেসব মানুষ পালিয়ে গিয়েছিলেন তাদের কেউ কেউ গ্রামে ফিরতে শুরু করেছেন।

FacebookTwitterDiggStumbleuponRedditLinkedinPinterest
Pin It
এই পাতার আরো খবর -