৯০% কোরবানির বর্জ্য অপসারিত: মেয়র

নিজস্ব প্রতিবেদক,বর্তমানকণ্ঠ ডটকম: নির্ধারিত ২৪ ঘণ্টার মধ্যে রাজধানীর দুই সিটি করপোরেশন এলাকা থেকে ৯০ শতাংশ কোরবানির বর্জ্য অপসারণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) মেয়র সাঈদ খোকন।

রবিবার (০৩ সেপ্টেম্বর) ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের যৌথ সংবাদ সম্মেলনে এমনটাই জানিয়েছেন মেয়র। এদিন দুপুর ২টা পর্যন্ত দুই সিটি করপোরেশন এলাকা থেকে ২২ হাজার ২৭০ মেট্রিক টন বর্জ্য অপসারণ করা হয়েছে বলেও জানান সাঈদ খোকন।

নির্ধারিত ২৪ ঘণ্টা পর দুপুর ২টার দিকে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের নগর ভবনে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আনিসুল হয় লন্ডনে চিকিৎসাধীন থাকায় দুই সিটি কর্পোরেশনের পক্ষে দক্ষিণের মেয়র সাঈদ খোকন এ সংবাদ সম্মেলন করেন।

মেয়র সাঈদ খোকন বলেন, ‘আমরা উভয় সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে কোরবানির পশুর বর্জ্য অপসারণের ঘোষণা দিয়েছিলাম। গতকাল দুপুর ২টা থেকে রবিবার দুপুর ২টা পর্যন্ত ঘোষিত সময়ের মধ্য ৯০ শতাংশ বর্জ্য অপসারণ করতে পেরেছি। এটা চলমান রয়েছে, দ্রুত সময়ের মধ্যে অবশিষ্ট বর্জ্য অপসারণ করা হবে।’ তবে ঈদের দ্বিতীয় দিনেও রাজধানীর অনেক স্থানেই কোরবানির পশু জবাই দিতে দেখা যাচ্ছে।

মেয়র জানান, আজকের কোরবানির বর্জ্যও সিটি কর্পোরেশনের পরিচ্ছন্নতা কর্মীরা তাৎক্ষণিকভাবে অপসারণে কাজ করছে। ঈদের তৃতীয় দিন পর্যন্ত ঢাকা দক্ষিণে ১৮ হাজার মেট্রিক টন ও উত্তরে ১০ হাজার মেট্রিক টন বর্জ্য হবে বলে ধারণার কথা ঈদের আগেই সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছিলেন দক্ষিনের মেয়র সাঈদ খোকন।

মেয়র সাঈদ খোকন জানান, রবিবার দুপুর ২টা পর্যন্ত দক্ষিণে পর্যন্ত ৩ হাজার ট্রিপে ১৪ হাজার মেট্রিক টন ও উত্তরে ১ হাজার ৬৮৬ ট্রিপের মাধ্যমে ৮ হাজার ২৭০ মেট্রিক টন বর্জ্য অপসারণ করা হয়েছে। অবশিষ্ট বর্জ্য দ্রুত সময়ে অপসারণ করা হবে। বর্জ্য অপসারণে সহযোগিতার জন্য দুই সিটি করপোরেশনেই কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। উত্তরের ৯৮৩০৯৬৩ ও দক্ষিণের ০৯৬১১০০০৯৯৯ নম্বরে ফোন করে এ বিষয়ে সহায়তা পাওয়া যাবে। পশুর বর্জ্য অপসারণ শেষ না হওয়া পর্যন্ত এটি কারর্যকর থাকবে।

এছাড়াও নগর অ্যাপসের মাধ্যমেও এ বিষয়ে সহযোগিতা পাওয়া যাবে। কন্ট্রোল রুমে অনেকেই ফোন করেছেন জানিয়ে সাঈদ খোকন বলেন, ‘নগরীর কোথাও কোনও বর্জ্য পড়ে থাকতে দেখা গেলে আমাদের হটলাইনে ফোন করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছি। আমাদের কাছে ৯৫০টির মতো কল এসেছে । এর মধ্যে ৩১ জন তারা বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিষয়ে সহযোগিতা চেয়েছে।’

তিনি জানান, ৩১ জনের মধ্যে দুপুর ১টা পর্যন্ত ২২ জনকে সেবা দেওয়া হয়েছে। বাকি ৯ জনের সেবা দেওয়ার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন। এছাড়া বাকিরা হটলাইন সঠিক কি না তা জানার জন্য ফোন করেছিলেন। দুই সিটি করপোরেশনের প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তাদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, দক্ষিণে ১২ হাজার ও উত্তরে ৬ হাজার ৫৫১ জন কর্মী বর্জ্য ব্যবস্থাপনার কাজে নিয়োজিত।

এছাড়া বিভিন্ন ধরনের ৭০০ গাড়ি বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় কাজ করে যাচ্ছে।

FacebookTwitterDiggStumbleuponRedditLinkedinPinterest
Pin It
এই পাতার আরো খবর -