মেডিক্যালে ৫ নম্বর কেটে মেধাতালিকা তৈরি

নিউজ ডেস্ক,বর্তমানকণ্ঠ ডটকম: ২০১৭-২০১৮ শিক্ষাবর্ষে মেডিক্যালে (এমবিবিএস ও বিডিএস) ভর্তি পরীক্ষায় আগের বছরের (২০১৬) এইচএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ পরীক্ষার্থীদের সর্বমোট নম্বর থেকে পাঁচ নম্বর কেটে মেধাতালিকা তৈরি করা হবে।

একই সঙ্গে মেডিক্যালে ভর্তি পরীক্ষার আগের বছরে সরকারি কলেজে ভর্তি হওয়া ছাত্র-ছাত্রীদের ক্ষেত্রে সাড়ে ৭ নম্বর কেটে মেধাতালিকা তৈরি করা হবে।

রোববার সচিবালয়ে আসন্ন ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষে এমবিবিএস ও বিডিএস কোর্সে ভর্তি সংক্রান্ত সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম এতে সভাপতিত্ব করেন।

বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজে ভর্তির জন্য বিদেশি ছাত্র-ছাত্রীদের কোটা আগের মত ৫০ শতাংশ বহাল থাকবে। আগামী শিক্ষাবর্ষ থেকে বিডিএস-এর কোর্স এর মেয়াদ পাঁচ বছর হবে বলেও সভায় সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, দেশের শিক্ষা ব্যবস্থার ইতিহাসে গত শিক্ষাবর্ষের মেডিক্যাল কলেজের ভর্তি পরীক্ষা মাইলফলক হিসাবে চিহ্নিত হয়ে থাকবে। মেডিক্যাল ভর্তি পরীক্ষাকে বিতর্কিত করার জন্য অতীতে গুজব ছড়ানো হতো। কিন্তু গত বছর নজরদারি ও  নিখুঁত প্রক্রিয়া অনুসরণ করায় কোনো বিতর্ক সৃষ্টির সুযোগ কেউ পায়নি। আগামীতেও এটা অক্ষুণ্ন রাখতে এখন থেকেই প্রস্তুতির কাজ শুরু হয়েছে।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের এই পদক্ষেপ এখন অন্যান্য পরীক্ষা নিয়ন্ত্রণ কমিটি অনুসরণ করার আগ্রহ দেখাচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজগুলোর শিক্ষার মান বাড়াতে সরকারের কঠোর মনোভাব ও পদক্ষেপ অব্যাহত থাকবে।

বেসরকারি কলেজের শিক্ষার মান উন্নয়নে নিয়মিত পরিদর্শন কার্যক্রম জোরদার করতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দিয়ে এ কাজে ওভার সাইট কমিটির সদস্য শিক্ষাবিদ, সাংবাদিক, সুশীল ব্যক্তিত্বদের সম্পৃক্ত করার জন্যেও তিনি পরামর্শ দেন।

মেডিক্যাল কলেজে শিক্ষক সংকট দূর করতে চিকিৎসকদের পদোন্নতি প্রক্রিয়া নিয়মিতকরণের উদ্যোগ নেওয়ার পাশাপাশি এক্ষেত্রে দীর্ঘসূত্রিতা কমানোর জন্যও সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

সভায় জানানো হয়. মানিকগঞ্জ সরকারি মেডিক্যাল কলেজকে কর্নেল মালেক মেডিক্যাল কলেজ হিসেবে নতুন নামকরণের প্রস্তাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনুমোদন দিয়েছেন।

এ সময় স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের সচিব মো. সিরাজুল ইসলাম, বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের  মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ, বাংলাদেশ কলেজ অব ফিজিশিয়ানস অ্যান্ড সাজর্নস (বিসিপিএস) সভাপতি অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া, বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলের (বিএমডিসি) সভাপতি অধ্যাপক ডা. শহীদুল্লাহ, বিএমএ মহাসচিব ডা. ইহতেশামুল হক দুলাল, কলামিস্ট ও গবেষক সৈয়দ আবুল মকসুদ, দৈনিক প্রথম আলোর যুগ্ম সম্পাদক আব্দুল কাইয়ুম উপস্থিত ছিলেন।

FacebookTwitterDiggStumbleuponRedditLinkedinPinterest
Pin It
এই পাতার আরো খবর -