এজেন্সির প্রতারণায় হজে যেতে পারছেন না ৩০ জন

ফাইল ফটোরাজশাহী,বর্তমানকণ্ঠ ডটকম: দেশের বেসরকারি হজ এজেন্সিগুলো হজের প্রাক নিবন্ধন নিয়ে ফাঁদ পেতে বসেছে। সিরিয়াল পেছনে পড়বে এমনটা জেনেও হজ গমনে ইচ্ছুকদের কাছ থেকে অর্থ নিয়েছে বেশ কিছু এজেন্সি। এমন এজেন্সির পাল্লায় পড়ে এবার রাজশাহীর ৩০ জন হজে যেতে পারছেন না।

এসব হজ গমন ইচ্ছুকদের বেশির ভাগের বাড়ি রাজশাহীর তানোর ও গোদাগাড়ী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল উপজেলায়। তবে এজেন্সি কর্তৃপক্ষ দাবি করেছেন যে, এটি কোন প্রতারণা নয়। এজেন্সির ভুলে হজ গমনে ইচ্ছুক কিছু সংখ্যক মানুষ এ সমস্যা পড়েছেন।

জানা যায়, চলতি বছর হজ পালনের জন্য হুদারিয়া এজেন্সির রাজশাহীর তানোর উপজেলা শাখা অফিসে বছরের শুরুতেই ৫০ হাজার টাকা করে জমা দেন ৩০ জন। এজেন্সির আশ্বাসে হজে যাওয়ার পুরোপুরি প্রস্তুতি নিয়ে ফেলেছিলো তারা। পরে তারা জানতে পারে হজে যাওয়ার জন্য হাজীদের রেজিস্ট্রেশনে তাদের নাম নেই। যার ফলে চলতি বছর ৩০ জনের হজে যাওয়া হচ্ছে না।

এমন সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে ভুক্তভোগীদের মধ্যে হতাশা দেখা দিয়েছে। তারা অভিযোগ করেন, এজেন্সি তানোর শাখায় দায়িত্বে পাঁচন্দর ইউনিয়নের কাজী মিজানুর রহমান তাদের এ অবস্থার জন্য দায়ী।

হুদারিয়া এজেন্সি তানোর শাখায় চলতি বছর রাজশাহীর তানোর, গোদাগাড়ী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার নাচোল উপজেলার ৩০ জন হজ গমনে ইচ্ছুকদের প্রত্যেকের সঙ্গে দুই লাখ ৮০ হাজার টাকা চুক্তি করে।

চুক্তি অনুযায়ী চলতি বছরের জানুয়ারির শুরুতেই রেজিস্টেশন বাবদ ৫০ হাজার টাকা করে অগ্রিম জমা নেন এজেন্সির প্রতিনিধি। চলতি বছর হজে যাওয়ার জন্য সরকারি নির্ধারিত রেজিষ্টেশনের শেষ সময় ছিল ১৯, ২০ ও ২২ ফেব্রুয়ারি। সময় শেষ হলেও রেজিস্ট্রেশনে এখন পর্যন্ত ৩০ জনের নাম নেই।

ভুক্তভোগীদের কয়েকজন জানান, চলতি বছর হজে যাওয়ার জন্য যারা টাকা জমা দিয়েছেন তাদের বেশিরভাগের বয়স ৬০ বছরের বেশি। এবার হজে যেতে না পারলে আগামী বছর তাদের জন্য কষ্টসাধ্য হয়ে পড়বে।

তারা অভিযোগ করেন, হুদারিয়া এজেন্সির প্রতিনিধি মিজানুর রহমান ৩০ জন হাজীর রেজিস্ট্রেশনের টাকা জমা নিয়ে নিজের দায়দেনা মিটিয়েছেন। এজেন্সির পক্ষ থেকে মিথ্যে আশ্বাস দেয়া হচ্ছে যে আগামী বছর হজে নিয়ে যাবে। এ ধরনের প্রতারক এজেন্সির মাধ্যমে তারা আর হজে যেতে চান না।
 
এ বিষয়ে হুদারিয়া এজেন্সি তানোর শাখায় প্রতিনিধি কাজী মিজানুর রহমান বলেন, ‘এটা কোন প্রতারণা নয়। তবে এটা আমাদের ভুল। আমাদের সামান্য ভুলে এসব হাজীদের রেজিস্ট্রেশন সময়ের মধ্যে করা যায়নি। আগামী বছর তাদের হজে পাঠানো হবে।’

তানোর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল ইসলাম বলেন, ‘বিষয়টি আমাদের জানা নেই। এ বিষয়ে কেউ এখন পর্যন্ত থানায় অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ দিলে এজেন্সির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

FacebookTwitterDiggStumbleuponRedditLinkedinPinterest
Pin It
এই পাতার আরো খবর -