বন্যার্তরা আক্রান্ত হচ্ছে ডায়রিয়ায়, স্যালাইনের সংকট

রাজশাহী,বর্তমানকণ্ঠ ডটকম: নগরীর বিভিন্ন উপজেলা বন্যায় প্লাবিত হয়েছে। ফসলি জমির পাশাপাশি জলাবদ্ধতায় রয়েছে কয়েক হাজার বাড়ি-ঘর। ওই সমস্ত এলাকার জনগণের মধ্যে পানি বাহিত রোগে ভুগছেন অনেকে। বিশেষ করে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছেন বন্যার্তরা। এতে খাবার স্যালাইনের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে।

জেলার বাগমারা, পবা, তানোর ও মোহনপুরে বন্যা কবলিত এলাকাসহ বিভিন্ন এলাকার স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলো ডায়রিয়া আক্রান্তদের চিকিৎসা দিতে হিমশিম খাচ্ছে। বন্যাকবলিত বিভিন্ন এলাকায় স্বাস্থ্য কর্মীদের উপস্থিতিও নেই বলে অভিযোগ করেছেন স্থানীয়রা।

মোহনপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের তথ্য থেকে জানা যায়, শনিবার (১৯ আগস্ট) পর্যন্ত নারী-পুরুষ শিশুসহ ডায়রিয়ায় আক্রান্ত কমপক্ষে ৩০ জন রোগী ভর্তি হয়েছে।  
এলাকাবাসী জানান, বন্যার পর থেকে ডায়রিয়ার প্রকোপ বৃদ্ধি পেয়েছে। মোহনপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীর স্বজনেরা অভিযোগ করে জানান, খাবার স্যালাইন চাহিদামত পাওয়া যাচ্ছেনা।

মোহনপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কর্মকর্তা গৌতম কুমার পাল জানান, চাহিদামত স্যালাইন না থাকায় রোগীকে দেয়া সম্ভব হচ্ছেনা। চাহিদামত খাবার ও কলেরা স্যালাইনের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দফতরে চাহিদা পাঠানো হচ্ছে।
বন্যা কবলিত এলাকায় স্বাস্থ্য কর্মীরা নেই জানতে চাইলে তিনি জানান, স্বাস্থ্য কর্মীরা মাঠ পর্যায়ে রয়েছেন।

এদিকে বাগমারা উপজেলা চেয়ারম্যান জাকিরুল ইসলাম সান্টু বলেন, ‘তার এলাকায় ডায়রিয়া আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। দুঃস্থদের প্রতিদিনই সাহায্য সহযোগিতা করা হচ্ছে।

পবা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ইনচার্জ ডা. রিজাউল হক চৌধুরী বলেন, ‘তার কমপ্লেক্সে ডায়রিয়া আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা স্বাভাবিক। পানি নামার সময় ডায়রিয়া আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে তিনি আশঙ্কা করছেন।’

FacebookTwitterDiggStumbleuponRedditLinkedinPinterest
Pin It
এই পাতার আরো খবর -