আজ মহাঅষ্টমী ও কুমারী পূজা

নিউজ ডেস্ক,বর্তমানকণ্ঠ ডটকম: আজ ছিল দুর্গোৎসবের তৃতীয় দিন। শ্রীশ্রী দুর্গা দেবীর নবপত্রিকা প্রবেশ স্থাপন সপ্তম্যাদি কল্পারম্ভের মধ্য দিয়ে বুধবার (২৭ সেপ্টেম্বর) শেষ হয়েছে সপ্তমী পূজা। আর বৃহস্পতিবার মহাঅষ্টমী ও কুমারী পূজা।

৫দিনব্যাপী শারদীয় দুর্গোৎসবের সবচেয়ে আকর্ষণীয় এবং জাঁকজমকপূর্ণ দিন আজ। দেবীর সন্ধ্যাপূজা আর কুমারী পূজার মধ্য দিয়ে দিনটি পালন করবে হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা। কুমারী বালিকার মধ্যে শুদ্ধ নারীর রূপ চিন্তা করে তাকে দেবী মনে পূজা করবে ভক্তরা।

অষ্টমী পূজা বৃহস্পতিবার (২৮ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ৬টায় ও কুমারী পূজা বেলা ১১টায় অনুষ্ঠিত হবে। রাত ৯টা ৪৫ মিনিটে শুরু হবে সন্ধিপূজা।

কুমারী পূজা প্রসঙ্গে শ্রীরামকৃষ্ণ পরমহংস দেব বলেছেন, সব স্ত্রীলোক ভগবতীর একেকটি রূপ। শুদ্ধাত্মা কুমারীতে ভগবতীর বেশি প্রকাশ। কুমারী পূজার মাধ্যমে নারী জাতি হয়ে উঠবে পূতঃপবিত্র ও মাতৃভাবাপন্ন। প্রত্যেকে শ্রদ্ধাশীল হবে নারী জাতির প্রতি। দেবী পুরাণেও কুমারী পূজার সুষ্পষ্ট উল্লেখ রয়েছে।

১৯০১ সালে ভারতীয় দার্শনিক ও ধর্মপ্রচারক স্বামী বিবেকানন্দ সর্বপ্রথম কলকাতার বেলুড় মঠে কুমারী পূজা র মাধ্যমে এর পুনঃপ্রচলন করেন। তখন থেকে প্রতিবছর দুর্গাপূজার অষ্টমী তিথিতে এ পূজা চলে আসছে। পূজার আগ পর্যন্ত কুমারীর পরিচয় গোপন রাখা হয়।

এছাড়াও নির্বাচিত কুমারী পরবর্তী সময় স্বাভাবিক জীবনযাপন, আচার-অনুষ্ঠান করতে পারে। শাস্ত্র অনুসারে, সাধারণত ১ থেকে ১৬ বছরের সুলক্ষণা কুমারীকে পূজা করা হয়।

ব্রাহ্মণ অবিবাহিত কন্যা অথবা অন্য গোত্রের অবিবাহিত কন্যাকেও পূজার বিধান শাস্ত্রে রয়েছে। বয়স ভেদে কুমারীর নাম হয় ভিন্ন। ১ থেকে ১৬ বছর বয়সী কন্যাকে অজাতপুষ্পবালা কুমারী বলা হয়। বয়স অনুযায়ী তার নাম বদলে যায়।

এক বছর বয়সের কন্যাকে সন্ধ্যা, দুই বছর বয়সীকে সরস্বতী, তিন বছর বয়সীকে ত্রিধামূর্তি, চার বছর বয়সীকে কালিকা, পাঁচ বছর বয়সীকে সুভগা, ছয় বছর বয়সীকে উমা, সাত বছর বয়সীকে মালিনী, আট বছর বয়সীকে কুব্জিকা, নয় বছর বয়সীকে অপরাজিতা, ১০ বছর বয়সীকে কালসন্ধর্ভা, ১১ বছর বয়সীকে রুদ্রানী, ১২ বছর বয়সীকে ভৈরবী, ১৩ বছর বয়সীকে মহালক্ষ্মী, ১৪ বছর বয়সীকে পীঠনায়িকা, ১৫ বছর বয়সীকে ক্ষেত্রজ্ঞা এবং ১৬ বছর বয়সীকে অম্বিকা বলা হয়ে থাকে।

FacebookTwitterDiggStumbleuponRedditLinkedinPinterest
Pin It
এই পাতার আরো খবর -