বন্যার্তদের পাশে নিয়ে আওয়ামী নেতাদের ঈদ

নিজস্ব প্রতিবেদক,বর্তমানকণ্ঠ ডটকম: চলতি বছরের দ্বিতীয় দফার বন্যায় সম্প্রতি দেশের ২২ জেলায় ব্যাপক প্রাণহানি ও ক্ষয়ক্ষতির ঘটনা ঘটেছে। ফলে ওইসব এলাকার আওয়ামী লীগ নেতারা এবার বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষদের পাশে নিয়ে ঈদ করতে চান। দলটির নীতি-নির্ধারণী পর্যায় থেকে ইতোমধ্যে এ ধরনের নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে।

গত মঙ্গলবার ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর এক সভা শেষে সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরও এমনটি জানিয়েছেন।

কাদের বলেন, ‘বন্যার ক্ষয়ক্ষতির রেশ কাটতে অনেক সময় লাগবে। ক্ষতিগ্রস্তরা পুনর্বাসন না হওয়া পর্যন্ত দল থেকে সাহায্য করা হবে। ঈদ আমরা দুর্গতদের উৎসর্গ করে সেভাবে ঈদ আনন্দ করবো না।’

তিনি বলেন, ‘যাদের ঈদ আনন্দ হারিয়ে গেছে তাদের মাঝে দাঁড়িয়ে আমরা সান্তনা দিবো। ঈদের খরচ সংকুচিত করে যতটা সম্ভব দুর্গত মানুষকে সাহায্য করবো।’

অন্যদিকে আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে ইতোমধ্যেই অনেক নেতা এলাকামুখী হয়েছেন। জনসম্পৃক্ততা বাড়িয়ে প্রার্থীতার প্রতিযোগিতায় এগিয়ে থাকতে ঈদে তারাও নির্বাচনী এলাকায় মহরা দেওয়ার পরিকল্পনা করেছেন। দলটির বিভিন্ন স্তরের নেতা ও তাদের ব্যক্তিগত সহকারীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, অনেক কেন্দ্রীয় নেতা ইতোমধ্যে নির্বাচনী এলাকায় অবস্থান করছেন। আবার অনেকে এলাকায় যাওয়ার অপেক্ষায় আছেন। কেউ কেউ প্রধানমন্ত্রীর সাথে গণভবনে শুভেচ্ছা বিনিময় শেষে ঈদের দিনও এলাকার পথ ধরবেন। এলাকায় তারা বিভিন্ন ধরনের সামাজিক কর্মসূচীতে অংশ নিতে চান।

প্রতিবারের মত এবারও আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পরিবার নিয়ে সরকারি বাসভবন গণভবনে ঈদ করবেন। দলটির দফতর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ জানিয়েছেন, প্রধানমন্ত্রী ঈদের দিন সকাল ৯টা থেকে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির নেতা, রাজনীতিবিদ, কবি, সাহিত্যিক, লেখক, সাংবাদিক, শিক্ষক, বুদ্ধিজীবীসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের সাথে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন। পরে বেলা ১১ টা থেকে বিচারপতি ও কূটনীতিকদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন।

এদিকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ঈদ করবেন নিজ নির্বাচনী এলাকা নোয়াখালীতে। এ বিষয়ে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের জেষ্ঠ্য তথ্য কর্মকর্তা আবু নাসের ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডিকে জানান, তিনি নোয়াখালীর কোম্পানিগঞ্জে ঈদের নামাজ আদায়করে ঢাকায় আসবেন।

এছাড়া আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্যদের মধ্যে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত সিলেটে, শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু ঝালকাঠিতে, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ ভোলায়, সাবেক মন্ত্রী রাজিউদ্দীন আহমেদ রাজু নরসিংদীতে ঈদ করবেন।

সভাপতিমণ্ডলীর সদস্যদের মধ্যে সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম ঢাকায় ঈদ করবেন।

তার ব্যক্তিগত সহকারী সাজ্জাদ আলম শাহীন বলেন, ‘জাতীয় ঈদগাহে সকালে ঈদের নামাজ আদায় করে প্রধানমন্ত্রীর সাথে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময়ে যোগ দেবেন। তবে ঈদের দ্বিতীয় দিন তিনি নিজের নির্বাচনী এলাকা কিশোরগঞ্জের মানুষের সাথে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করতে যাবেন।’

সভাপতিমণ্ডলীর সদস্যদের মধ্যে সংসদ উপনেতা সাজেদা চৌধুরী, সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী কর্নেল (অব.) ফারুক খান, ড. আবদুর রাজ্জাক, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন ঢাকায় ঈদ করবেন।

এছাড়া শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ সিলেটে, কাজী জাফরউল্লাহ ফরিদপুরে, স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম সিরাজগঞ্জে, স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন ফরিদপুরে, গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন চট্টগ্রামে, প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি চট্টগ্রামে, সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর নীলফামারীতে, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল ঢাকায়, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক গাজীপুরে, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া চাঁদপুরে, খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম ঢাকায়, পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল কুমিল্লায়, বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী মির্জা আজম জামালপুরে, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম রাজশাহীতে, পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নজরুল ইসলাম হিরু নরসিংদীতে, তথ্য ও যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক নাটোরে, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু ঢাকায় ঈদ করবেন।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকদের মধ্যে মাহবুব-উল আলম হানিফ কুষ্টিয়ায়, জাহাঙ্গীর কবীর নানক ঢাকা, দিপু মনি চাঁদপুরে ও আবদুর রহমান ফরিদপুরে ঈদ করবেন।

দলের সাংগঠনিক সম্পাদকদের মধ্যে আহমদ হোসেন নেত্রকোনায়, মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ সিলেটে, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম মাদারীপুরে, আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন জয়পুরহাটে, বিএম মোজাম্মেল শরীয়তপুরে, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী দিনাজপুরে, মুহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল চট্টগ্রামে ঈদ করবেন।

আগামী নির্বাচনে মনোনয়নপ্রত্যাশী সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন বলেন, সবসময়ই এলাকার জনমানুষের সাথে ঈদ করার চেষ্টা করি। আর এবার আমার নিজ এলাকা পূর্বধলাও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ঈদটি এলাকাবাসীর সাথেই কাটাবো।  

প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ চট্টগ্রামে, দফতর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ মাদারীপুরে ঈদ করবেন।

চট্টগ্রামের সাতকানিয়া থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী উপপ্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন বলেন, ‘এলাকার মানুষদের কাছাকাছি থাকতে চেষ্টা করি সবসময়ই। এবারও তাই করবো, নিজ এলাকার মানুষদের সাথেই প্রতিবারের মত ঈদটি উদযাপন করবো।’

নরসিংদীর রায়পুরা থেকে মনোনয়নপ্রত্যাশী আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট রিয়াজুল কবীর কাউসার ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডিকে বলেন, ‘ঈদের দিন সকালে জাতীয় ঈদগাহে ঈদের নামাজ আদায় করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাথে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময়ে যোগ দেব। ঈদের পরের দিন আমার এলাকা রায়পুরাবাসী সঙ্গে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করতে যাবো।’

FacebookTwitterDiggStumbleuponRedditLinkedinPinterest
Pin It
এই পাতার আরো খবর -