তারাবিহ নামাজের দোয়া ও নিয়ত

নিউজ ডেস্ক,বর্তমানকণ্ঠ ডটকম: রমজান মাসের চাঁদ দেখা গেছে। শনিবার এশার নামাজের পর পরই শুরু হয়েছে তারাবিহ নামাজ। বিশ্লেষকদের মতে তারাবিহ অর্থ তারাতারি। তবে নিয়ম হচ্ছে আরামের সহিত বিশ্রাম করে করে ধীরে ধীরে তারাবিহ পড়া। পাঠকদের জন্য তারাবিহ নামাজের দেয়া ও নিয়ত তুলে ধরা হল।
এশার নামাজের পর দুই রাকাত করে ১০ তাশাহহুদ তথা ১০ সালামের মাধ্যমে ২০ রাকাআ’ত তারাবিহ আদায় করতে হয়।

তারাবিহ নামাজের নিয়ত :
উচ্চারণ : নাওয়াইতু আন উসালিয়া লিল্লাহি তাআ’লা, রাকাআ’তাই সালাতিত তারাবিহ সুন্নাতু রাসুলিল্লাহি তাআ’লা মুতাওয়াযজ্জিহান ইলা যিহাতিল কা’বাতিশ শারিফাতি, আল্লাহু আকবার। *(যদি জামাআ’তের সহিত নামাজ হয় তবে- ইক্বতাদাইতু বি হাজাল ইমাম বলতে হবে)।

অর্থ : আমি ক্বিলামুখী হয়ে দুই রাকাআ’ত তারাবিহ সুন্নাত নামাজ আল্লাহর জন্য আদায়ের নিয়্যত করছি, আল্লাহু আকবার। (যদি জামাআ’তের সহিত নামাজ হয় তবে- এই ইমামের ইমামতিতে জামাআ’তের সহিত)।

তারাবিহ নামাজের ৪ রাকাআ’ত পরপর দোয়া :
প্রত্যেক দুই রাকাআ’ত পর সালাম ফিরানোর পর ইসতেগফার পড়তে হয়, দুরুদ পড়তে হয়, আল্লাহর স্মরণে জিকির করতে হয়। তারপর চার রাকাআ’ত হলেও কুরআন হাদিসের দুআ’গুলো পড়া হয়; যে দুআ’গুলো পাঁচ ওয়াক্ত নামাজে পড়া হয়। কিন্তু যে দুআ’টি বর্তমানে জারি আছে, এই দুআ’টি কোরআন-হাদিস সম্বলিত নয়; এটিও কোনো এক বুজুর্গ ব্যক্তি লিখে এর প্রচলন করেছেন, যার অর্থও ভালো বিধায় আমরা পড়ে থাকি-

দুআ’টি হলো-
উচ্চারণ: সুব্হানাযিল মুলকি ওয়াল মালাকুতি, সুব্হানাযিল ইয্যাতি, ওয়াল আয্মাতি, ওয়াল হাইবাতি, ওয়াল কুদরাতি, ওয়াল কিবরিয়াই, ওয়াল যাবারুত। সুব্হানাল মালিকিল হাইয়্যিল্লাজি লা-ইয়ানামু ওয়ালা ইয়ামুতু আবাদান আবাদা। সুব্বুহুন কুদ্দুছুন রাব্বুনা ওয়া রাব্বুল মালাইকাতি ওয়ার রূহ।

তারাবিহ নামাজের ৪ রাকাত পরপর মোনাজাত :
চার রাকাআ’ত পর পর মোনাজাত করা যায়, আবার একেবারে নামাজ শেষ করেও একবারেই মোনাজাত করা যায়। তারাবিহ নামাজের জন্য নির্দিষ্ট কোনো দুআ নেই। আমরা সব সময় নামাজের ক্ষেত্রে যে সব দুআ পড়ে থাকি এগুলো পড়লেই হয়। তারপরও বহু পূর্বে কোনো বুজর্গ বর্তমানে তারাবিহতে পঠিত দুআ’র প্রচলন করেছেন; যার অর্থ ভাল এবং উত্তম বিধায় আমরা তারাবিহ নামাজে এই দুআটি পড়ে থাকি। দুআ’টি এই-

উচ্চারণ : আল্লাহুম্মা ইন্না নাসআলুকা জান্নাতা ওয়া নাউ’জুবিকা মিনান্নারী, ইয়া খালিকাল জান্নাতা ওয়ান্নারী, বিরাহ্মাতিকা ইয়া আজিজু, ইয়া গাফ্ফারু, ইয়া কারীমু, ইয়া সাত্তারু, ইয়া রাহীমু, ইয়া জাব্বারু, ইয়া খালিকু, ইয়া র্বার। আল্লাহুম্মা আয্রিনা মিনান্নার; ইয়া মুযিরু, ইয়া মুযিরু, ইয়া মুযির। বিরাহ্মাতিকা ইয়া আর হামার রাহিমিন।

বি. দ্রি: কেউ যদি ভুলে কেবলা ঠিক করতে না পারেন তবে নিজের বিবেক যেই দিকে সাক্ষ্য দেয়, সেই দিকে মুখ করিয়া নামায আদায় করবেন।

FacebookTwitterDiggStumbleuponRedditLinkedinPinterest
Pin It