যত দিন ইচ্ছে খেলবে মাশরাফি: পাপন

স্পোর্টস ডেস্ক,বর্তমানকণ্ঠ ডটকম: ক্রিকেট বিশ্বে মাশরাফিই একমাত্র খেলোয়াড় যে কিনা হাঁটুতে বেশ কয়েকবার অস্ত্রোপচারের পরও পুরো উদ্যোমে সতীর্থদের নিয়ে প্রতিপক্ষকে কাঁপিয়ে যাচ্ছেন। ইতোমধ্যে বেশ কয়েকবার গুঞ্জনও উঠেছে তার অবসর নিয়ে। নিজের শরীর যে তার প্রধান শত্রু অনেকবারই সেটি মাঠেও দেখা গেছে। গেল মার্চে শ্রীলঙ্কায় টি-২০ সিরিজের পর এই ফরমেটের অধিনায়কত্ব ছেড়েছেন। ধারণা করা হচ্ছিল- হয়তো চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির পরই কিছু একটা ঘোষণা করবেন তিনি। কিন্তু তা হয়নি। বাংলাদেশের কোটি ক্রিকেট ভক্তের প্রাণের প্রত্যাশা আরও অনেক দিন মাঠে থাকুক মাশরাফি। কিন্তু সেটি কতদিন? সেটি কি ২০১৯ বিশ্বকাপ পর্যন্ত, নাকি আর বেশি।

তবে সব জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটালেন স্বয়ং বিসিবি বোর্ড প্রেসিডেন্ট নাজমুল হাসান পাপন। তিনি জানালেন, বাংলাদেশ দলে এখনও মাশরাফির বিকল্প তৈরি হয়নি। অতএব মাশরাফির যত দিন ইচ্ছে সে খেলবে।

মঙ্গলবার (১১ জুলাই) বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডে (বিসিবি) আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান বিষয়টি পরিষ্কার করে দিয়ে বলেন, ‘মাশরাফি যত দিন ইচ্ছা তত দিন খেলবে। তাকে ওয়ানডে দলের অধিনায়কত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়ার কোনো চিন্তা বোর্ডের নেই। মাশরাফির বিকল্পও এখনো তৈরি হয়নি। ওয়ানডেতে মাশরাফির অধিনায়কত্ব যাওয়া না যাওয়া নিয়ে কোনও কথাই হয়নি।’

বোর্ড প্রধানের কথায়, ‘মাশরাফি যেভাবে ওয়ানডে দলের অধিনায়কত্ব করে যাচ্ছে, তাতে বাংলাদেশে এই মুহূর্ত তার বিকল্প খুঁজে পাওয়া সত্যিই অসম্ভব। একজন পেস বোলার হিসেবেও তার পারফরম্যান্স দুর্দান্ত।’

দলে তো এখন অনেক সিনিয়র খেলোয়াড়। তাদের অনেকেই তো আগামী দু-তিন বছরের মধ্যে ধীরে ধীরে বিশ্রামের পথে হাঁটবেন। মুশফিক-সাকিব কিংবা রিয়াদদের বিকল্প হিসেবে কী ভাবা হচ্ছে? সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবেও খোলামেলা কথা বলেন পাপন।

তিনি বলেন, ‘আমাদের মাথায় কিন্তু সব সময়ই থাকে সাকিব চলে গেলে কী হবে, মুশফিক চলে গেলে কী হবে. এমন ভাবনা তো থাকবেই। কিন্তু এমন একটা ভাব হচ্ছে মাশরাফিকে যেন আজই বাদ দিয়ে দেওয়া হচ্ছে। ব্যাপারটা তা নয়। এমন কিছু ভেবে নেওয়া আমাদের জন্যও অস্বস্তির ওর হিসেবেও অস্বস্তির। যতদিন সে খেলতে পারবে, তাকে বাদ দেওয়ার প্রশ্নই ওঠে না। ’

এদিকে সম্প্রতি নিজের খেলা চালিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা নিয়ে গণমাধ্যমকে মাশরাফি বলেছিলেন, ‘খেলাটা এখনও আমার কাছে সমান উপভোগ্য। পারফরম্যান্স ও ফিটনেস ধরে রাখতে পারলে ২০১৯ বিশ্বকাপে তো খেলার ইচ্ছে আছেই। আর দলের প্রয়োজনে শুধু অধিনায়কত্ব নয়, যেকোনও সিদ্ধান্ত নিতে পারে বিসিবি। দলের স্বার্থে আমি যেকোনও সিদ্ধান্তকেই সহজে মেনে নিতে রাজি।’

FacebookTwitterDiggStumbleuponRedditLinkedinPinterest
Pin It
এই পাতার আরো খবর -