মঙ্গলবার, ০৯ জুলাই ২০২৪, ০৬:০০ অপরাহ্ন

গার্মেন্টস কেন খোলা থাকবে – সালাউদ্দীন চৌধুরী

আহাদ সাফি / ৫০ পাঠক
সোমবার, ২৮ জুন, ২০২১

এবার গার্মেন্টস খুলে রাখা নিয়ে মুখ খুললেন স্টাইলিশ গার্মেন্টস এর চেয়ারম্যান, বিজিএমইএর সদস্য বিশিষ্ট শিল্পপতি মোঃ সালাউদ্দীন চৌধুরী। ২৭ জুন রাত ৯ টায় তার নিজস্ব ফেসবুকে লাইভে এসে সকলের করা প্রশ্নের উত্তর দেন গার্মেন্টস কেন খোলা থাকবে।

মোঃ সালাউদ্দীন চৌধুরী বলেন, আপনার হয়তো জানেন গার্মেন্টসটা ইউরোপ আমেরিকার ওপর নির্ভরশীল, তাদের ওখানে এখন অনেক করোনা টিকা প্রদান করা হয়েছে, তাই করোনা অনেকটা কমে গেছে। আর এখন আস্তে আস্তে অর্ডার আসতে শুরু করেছে আমাদের দেশে আর আমাদের গত বছরে ক্ষতি ও ব্যাংক লোন বেড়ে যাওয়ায় এখন কিছুটা ক্ষতি পূরণে সক্ষম হচ্ছিলাম কিন্তু এখন যদি আবার গার্মেন্টস বন্ধ করে দেই তাহলে আমরা আবার সেই ক্ষতিতে পড়ে যাবো, এইবার আর সেই ক্ষতি থেকে বের হওয়া সম্ভব হবেনা। আর বিদেশী ব্যাবসায়িদের সব অর্ডার চলে যাবে ভিয়েতনাম, ইন্ডিয়া, পাকিস্তানে।

আমাদের দেশের অর্থনীতির মূল শেখড় যখন গার্মেন্টস শিল্প তখন আমরা অর্থনৈতিক দিক দিয়ে আরো পিছিয়ে পড়বো মালিক ভালো খারাপ সবাই আছে,কেউ আছে দেশের টাকা বিদশে পাচার করে তারা তো দেশের শত্রু, কিন্তু অনেক মালিক আছে যারা অনেক কষ্ট করে।

আমাদের গার্মেন্টস থেকে যে টাকাটা আসে তা কিন্তু প্রায় শ্রমিকদের বেতনেই চলে যায়, আবার ব্যাংকের ইন্টারেস্ট আমাদের ইন্টারেস্ট আছে অনেক তার মধ্যে কিছু কমিয়ে ছিলেন আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আশা করি আরও কিছু ইন্টারেস্ট কমাবে বাংলাদেশ ব্যাংক ব্যবসায়ীদের কথা চিন্তা করে।

আর গার্মেন্টস বন্ধ থাকলে বিপুল টাকা ব্যাংকের ঋণ খেলাপি হবে, জনগণের টাকা নষ্ট হবে । আপনারা যানেন আমাদের দেশের অর্থনীতি গার্মেন্টস শিল্পের ওপর নির্ভরশীল।দলবল নির্বিশেষে সবাই জানেন দেশ কিছুটা হলেও এগিয়ে ছিলো, কিন্তু আজ গার্মেন্টস বন্ধ হলে তা আবার পিছিয়ে যাবে সুতরাং উন্নয়ন দেশের অর্থনীতিকে সচল রাখতে গার্মেন্টস খুলে রাখার বিকল্প নেই।

আপনারা দেখবেন খুবই কম করোনা সংক্রমণ গার্মেন্টস কর্মীদের, এখানে যেভাবে প্রতিনিয়ত টেম্পারেচার মাপা হয়, এবং মালিক গুলোও অনেক সতর্ক অনেক নিরাপত্তা নিয়ে কাজ করায় শ্রমিকদের।

আমি মনে করি, গার্মেন্টস খুলাতে নিরাপত্তা নিয়ে শ্রমিকরা কাজ করলে কোন সমস্যা হবে না, আর আপনারা জানেন ঈদ সামনে এখন যদি সবাই রউনা দেয় তাহলে কিন্তু আটকানো সম্ভব না, আমাদের রোগ সারাতে হবে কিন্তু তার সাথে আমাদের অর্থনীতিকও টিকিয়ে রাখতে হবে।

আমরা হয়তো বলে থাকি আমাদের সরকার টিকার ব্যবস্থা করতে পারেনি, কিন্তু দেখেন ডুবাইয়ে ৪০ লাখ লোক কিন্ত তারা ৫০ লাখ টিকা নিয়ে বসে আছে ওরা টুরিস্টদের ও ফ্রি টিকা দিবে। আমাদের দেশ কিন্তু চাইলে তা সম্ভব না, ১৮ কোটি মানুষকে টিকার আওতায় আনা সম্ভব না।

তিনি আরো উল্লেখ করেন, গার্মেন্টস বন্ধ হলে কিন্তু শুধু মালিক রা বিপদে পড়বে বিপদে পড়বে শ্রমিকরাও, বায়িং হাউজের লোকরাও কারণ আমাদের দেশের বড় অর্থনৈতিক থাত এই শিল্প সুতরাং এই গার্মেন্টস শিল্পের সাথে কিন্তু প্রায় কয়েক কোটি মানুষ জড়িত সকলেই কিন্তু ক্ষতির সম্মুখীন হবে।

পরিশেষে মোঃ সালাউদ্দীন চৌধুরী বলেন, গার্মেন্টস শিল্পের মাধ্যমেই কিন্তু বিদেশ থেকে টাকা আসে আর এই টাকা থেকে দেশ লাভবান হচ্ছে । সুতরাং দেশের অর্থনীতি ও দেশকে উন্নয়নের ধারায় রাখতে গার্মেন্টস চালাতে হবে।

এই লকডাউনের মধ্যেও যদি আমরা নিজ নিজ জায়গা থেকে অসচ্ছল পরিবার গুলোকে কিছু ত্রাণ দেয়ার চেষ্টা করি তাহলে মনে করি লকডাউনেও অসুবিধা হবে না। মানুষের পাশে থাকলে যে রাজনীতি করতে হবে সেটা ঠিক না, রাজনীতির জায়গায় রাজনীতি বিজনেসের জায়গায় বিজনেস।

তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু কে ভালবাসলে যে আওয়ামী লীগ করতে হবে তা কিন্তু না, আপনারা যানেন বাঙলী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু, সব দেশেই একজন জাতির পিতা আছে। তাই তাদের ভালবেসে তাদের অনুসরণ করে কাজ করলে বরং আমরা আরো এগিয়ে যাবো।

সুতরাং আমরা কঠোর নিরাপত্তা দিয়ে গার্মেন্টস খুলা রাখবো আশা করি দেশের অর্থনীতি টিকিয়ে রাখতে বিজিএমইএর সভাপতি মোঃ ফারুক হাসান আছেন তারা দ্রুত শ্রমিকদের টিকা দেয়ার ব্যবস্থা করবেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই পাতার আওর সংবাদ