শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ০২:৪৫ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম-
গাজায় ইসরায়েলি হামলায় নিহত আরও ৩৮ ফিলিস্তিনি জেলেনস্কির হোমটাউনে রাশিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় নিহত ৯ বিমান দুর্ঘটনায় ভাইস প্রেসিডেন্ট নিহত: মালাবিতে ২১ দিনের শোক সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান হত্যা: বিচারের দাবীতে টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে মহাসড়ক অবরোধ মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার অস্থিরতাকারীদের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর হুঁশিয়ারি নাগরিক সমস্যা সমাধানে সরকার ও নাগরিকের অংশীদারিত্ব প্রয়োজন: তথ্য প্রতিমন্ত্রী বিনা কর্তনে সেন্সর ছাড়পত্র পেল ‘মুনাফিক’ আমাদের দিয়ে রান্না করাতো জলদস্যুরা, খেয়ে ফেলতো সবই যাতায়াতের দুর্ঘটনায় ক্ষতিপূরণ পাবে পোশাক শ্রমিকরা আলোচিত সংগীতশিল্পীসহ নিহত ২, পালিয়েও শেষ রক্ষা হয়নি বাসচালকের

চীনের দিনে ২ ঘণ্টা ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারবে শিশু-কিশোররা

বর্তমানকণ্ঠ ডটকম / ১১১ পাঠক
শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ০২:৪৫ পূর্বাহ্ন

শিশু-কিশোরদের স্মার্টফোনে আসক্তি রোধে উদ্যোগ নিয়েছে চীন। ১৮ বছরের কম বয়সীদের স্মার্টফোনে ইন্টারনেটের ব্যবহারের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ২ ঘণ্টা সময়সীমা বেঁধে দেয়ার প্রস্তাব করেছে চীনা কর্তৃপক্ষ।

অনলাইন গেম, সোশ্যাল সামজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারের নেশায় বর্তমান প্রজন্ম ডুব দিয়েছে স্মার্টফোনে। ছোট শিশুরাও দিনের বড় সময়টাই কাটিয়ে দিচ্ছে স্রেফ ফোন দেখে। এই প্রবণতা কমাতে চাইছে চীন।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, গত বুধবার চীনের সাইবারস্পেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের একটি প্রস্তাব তুলে ধরে । তাতে বলা হয়, অপ্রাপ্তবয়স্করা রাত ১০টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত কোনো ধরনের ইন্টারনেট পরিষেবা ব্যবহার করতে পারবে না। ১৬ থেকে ১৮ বছর বয়সীরা দিনে ২ ঘণ্টা, ৮ থেকে ১৫ বছর বয়সীরা দিনে ১ ঘণ্টা এবং যাদের বয়স ৮ বছরের নিচে তারা দিনে মাত্র ৪০ মিনিট ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারবে। আগামী ২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এ ব্যাপারে জনগণের মতামত দেখা হবে। তারপর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে চীন সরকার।

উল্লেখ্য, চীন আগেও এমন ধরনের পদক্ষেপ করেছিল। ২০১৯ সালে শিশুদের অনলাইন গেম খেলার সময়সীমা বেঁধে দিয়েছিল বেইজিং। সে সময় শিশুদের দিনে ৯০ মিনিটের বেশি গেম খেলায় নিষেধাজ্ঞা ছিল। এরপর ২০২১ সালে সেই নির্দেশ আরও কঠোরভাবে জারি করা হয়েছিল। নতুন নির্দেশিকায় বলা হয়েছিল, শুক্রবার থেকে শুরু হওয়া সপ্তাহান্ত এবং সরকারি ছুটির দিনগুলোতে শিশুরা ১ ঘণ্টা করে অনলাইন গেম খেলতে পারবে।

ইন্টারনেটের মাধ্যমে বিভিন্ন অপরাধের সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই সবার নিরাপত্তার স্বার্থে এবং অবশ্যই অনলাইনের আসক্তি দূর করতে বেইজিংয়ের এই উদ্যোগ। অন্যদিকে শিশুদের ইন্টারনেট ব্যবহারের ক্ষেত্রে শুধু শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যের বিকাশ ঘটায়, এমন অ্যাপগুলোকেই নেট পরিষেবা প্রদানের ক্ষেত্রে ছাড় দিয়েছে সি চিন পিং প্রশাসন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *