রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৭:৩৬ অপরাহ্ন

শিরোনাম-
গাজায় ইসরায়েলি হামলায় নিহত আরও ৩৮ ফিলিস্তিনি জেলেনস্কির হোমটাউনে রাশিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় নিহত ৯ বিমান দুর্ঘটনায় ভাইস প্রেসিডেন্ট নিহত: মালাবিতে ২১ দিনের শোক সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান হত্যা: বিচারের দাবীতে টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে মহাসড়ক অবরোধ মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার অস্থিরতাকারীদের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর হুঁশিয়ারি নাগরিক সমস্যা সমাধানে সরকার ও নাগরিকের অংশীদারিত্ব প্রয়োজন: তথ্য প্রতিমন্ত্রী বিনা কর্তনে সেন্সর ছাড়পত্র পেল ‘মুনাফিক’ আমাদের দিয়ে রান্না করাতো জলদস্যুরা, খেয়ে ফেলতো সবই যাতায়াতের দুর্ঘটনায় ক্ষতিপূরণ পাবে পোশাক শ্রমিকরা আলোচিত সংগীতশিল্পীসহ নিহত ২, পালিয়েও শেষ রক্ষা হয়নি বাসচালকের

জিততে পাকিস্তানের প্রয়োজন ২৬৭ রান

বর্তমানকণ্ঠ ডটকম / ৯৮ পাঠক
রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৭:৩৬ অপরাহ্ন

ইশান কিশান ও হার্দিক পান্ডিয়ার বড় জুটির আগে-পরে পাকিস্তানের পেসাররা দেখালেন নিজেদের সামর্থ্য। সেখানে নেতৃত্ব দিলেন বাঁহাতি পেসার শাহিন শাহ আফ্রিদি। তাকে যোগ্য সঙ্গ দিলেন দুই ডানহাতি পেসার হারিস রউফ ও নাসিম শাহ। তাদের দুর্দান্ত বোলিংয়ে ভারত অলআউট হলো ২৬৬ রানে। ফলে জিততে পাকিস্তানের প্রয়োজন ২৬৭ রান।

শনিবার পাল্লেকেলেতে এশিয়া কাপের বহুল প্রতীক্ষিত ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছে দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী। টস জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে ৭ বল বাকি থাকতে গুটিয়ে গেছে ভারত। তবে ইশান ও হার্দিকের হাফসেঞ্চুরিতে পাকিস্তানকে পেয়েছে চ্যালেঞ্জিং লক্ষ্য।

বৃষ্টির কারণে দুবার বন্ধ হওয়া ভারতের ইনিংসে পাঁচে নেমে ইশান খেলেন ৮২ রানের ইনিংস। ৮১ বল মোকাবিলায় তিনি মারেন ৯ চার ও ২ ছক্কা। হার্দিক ছয়ে নেমে করেন ৯০ বলে ৮৭ রান। তার ব্যাট থেকে আসে ৭ চার ও ১ ছক্কা। এই দুজন ছাড়া ভারতের আর কোনো ব্যাটার ২০ রান পর্যন্তও যেতে পারেননি। প্রথম ৪ উইকেট তারা হারায় ৬৬ রানে। আর বাকি ৬ উইকেট খোয়ায় শেষ ৬২ রানে। ফলে এক পর্যায়ে তিনশ রানের সম্ভাবনা জাগালেও তা দূরের পথই থেকে যায় ভারতের।

অসমান বাউন্স ও গতির উইকেটকে ভালোমতো কাজে লাগান পাকিস্তানের পেসাররা। শাহিন ১০ ওভারে ২ মেডেনসহ ৪ উইকেট নেন ৩৫ রানে। ৮.৫ ওভারে ৩ উইকেট পেতে নাসিমের খরচা ৩৬ রান। রউফও শিকার করেন ৩ উইকেট। তবে কিছুটা খরুচে ছিলেন তিনি। ৯ ওভারে দেন ৫৮ রান। তিন স্পিনারও ব্যবহার করেন পাকিস্তানের অধিনায়ক বাবর আজম। তবে শাদাব খান, মোহাম্মদ নওয়াজ ও আগা সালমানের কেউই উইকেট পাননি।

বৃষ্টির কারণে ভারতের ইনিংসের ৪.২ ওভারের পর প্রথম দফায় খেলা বন্ধ হয়ে যায়। আধা ঘণ্টা পর আবার তা চালু হলে তোপ দাগেন শাহিন। ওই ওভারেরই শেষ বলে তিনি বোল্ড করে দেন রোহিত শর্মাকে। সামান্য ভেতরে ঢোকা ফুল লেংথের অসাধারণ ডেলিভারিতে স্টাম্প হারান ভারতীয় দলনেতা। ব্যাটে বল লাগানোর কোনো উপায়ই যেন খুঁজে পাননি তিনি! ২২ বলে ২ চারে তার রান ১১।

১৫ রানে প্রথম উইকেট হারানো ভারতের ইনিংসে শাহিন আবার ধাক্কা দেন সপ্তম ওভারে। এবারে তার শিকার হন বিরাট কোহলি, রোহিতের আউটের পর যার দিকে তাকিয়ে ছিল দলটি। পিচে পড়ার পর কিছুটা থেমে আসা বল স্টাম্পে টেনে আউট হন কোহলি। ৭ বলে ১ চারে ঠিক ৪ রানই আসে তার ব্যাট থেকে। এতে ২৭ রানে দ্বিতীয় উইকেট হারিয়ে ফেলে ভারত।

পাওয়ার প্লের শেষ ওভারে পাকিস্তানের উল্লাস আরও জোরালো করেন রউফ। পাল্টা আক্রমণের আভাস দিচ্ছিলেন শ্রেয়াস আইয়ার। মারমুখী ব্যাটিংয়ে রান আনছিলেন দ্রুত। তাকে সাজঘরের পথ দেখান রউফ। শর্ট ডেলিভারি হাঁকাতে গিয়ে মিডউইকেটে দাঁড়ানো ফখর জামানের হাতে ক্যাচ তুলে দেন শ্রেয়াস। ৯ বলে ২ চারে তিনি করেন ১৪ রান। এতে থামে শুবমান গিলের সঙ্গে তার জুটি গড়ার প্রচেষ্টা।

ওপেনিংয়ে নামা গিল ধুঁকছিলেন। কখনোই সাবলীল মনে হয়নি তাকে, যদিও অনেকটা সময় একপ্রান্ত আগলে ধরে রেখেছিলেন তিনি। তার স্বভাববিরুদ্ধ ধীরগতির ইনিংসের ইতি টানেন রউফ। কোহলির মতো তিনিও ইনসাইড এজে বোল্ড হন। ৩২ বলে ১ চারে মাত্র ১০ রান করেন গিল।

পঞ্চদশ ওভারের মধ্যে ব্যাটিং লাইনআপের প্রথম চার ব্যাটারই সাজঘরে। এমন অবস্থায় প্রতিরোধ গড়ার বিকল্প ছিল না ভারতের। ইশান ও হার্দিক সেই দায়িত্ব কাঁধে তুলে সফলভাবে সম্পন্ন করেন। শুধু সেটাই নয়। চাপের মুখে থাকলেও ওভারপ্রতি রান তোলার গড় পাঁচের আশেপাশেই রাখেন দুজনে। পরে আক্রমণাত্মক হয়ে তা আরও বাড়িয়ে নেন। মূলত পাকিস্তানের পেসাররা বোলিং থেকে সরে যাওয়ার পর স্পিনারদের ওপর চড়াও হন তারা।

পঞ্চম উইকেট জুটিতে ওঠে ১৪১ বলে ১৩৮ রান। আক্রমণে ফিরে এই জুটি ভাঙেন রউফ। বল যথেষ্ট শর্ট না হলেও পুল করার চেষ্টায় আকাশে তুলে দেন ইশান। মিড অনে সহজ ক্যাচ নেন বাবর।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *