শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ০৪:০৬ পূর্বাহ্ন

মানববন্ধনে নেতৃবৃন্দ : লিবিয়ায় বাংলাদেশী হত্যাকারী মানবপাচারকারীদের শাস্তি দিতে হবে

বর্তমানকণ্ঠ ডটকম / ৩৫ পাঠক
শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ০৪:০৬ পূর্বাহ্ন

বর্তমানকন্ঠ ডটকম : লিবিয়ার মিসদাহ শহরে মানব পাচারকারী চক্রের হাতে ২৬ জন বাংলাদেশেীসহ ৩০ জন অভিবাসীকে নির্মমভাবে গুলি করে হত্যার ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়ে পাশাপাশি হত্যাকান্ডের শিকার ব্যক্তিদের শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা প্রকাশ করে নেতৃবৃন্দ বলেছেন, লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশীসহ অভিবাসীদের উপর ঠান্ডা মাথায় গণহত্যা চালানো হয়েছে। এ ঘৃণ্য হত্যাকান্ডে জড়িত অবৈধ মানব পাচারকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে। একই সাথে নিহতদের পরিবারকে উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ প্রদান করতে হবে।

রবিবার (৭ জুন) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ‘লিবিয়ায় প্রবাসী গণহত্যায় জড়িত মানবপাচারবারীদের শাস্তি ও নিহতদের পরিবারকে উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ প্রদানের দাবীতে” এশিয়া মানবাধিকার সংস্থা আয়োজিত মানববন্ধন কর্মসূচী থেকে এই দাবী জানানো হয়।

এশিয়া মানবাধিকার সংস্থার ভাইস চেয়ারম্যান মো. হাসমত উল্লাহ’র সভাপতিত্বে ও মহাসচিব নজরুল ইসলাম বাবলু’র সঞ্চালনায় সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট রাজনৈতিক বিশ্লেষক, কলাম লেখক এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, আরো বক্তব্য রাখেন সংগঠনের ভাইস চেয়ারম্যান আবু মোজাফ্ফর মো. আনাছ, জুমায়ূন কবির বেপারী, সালমান ওমর রুবেল, বাবু সুরঞ্জন ঘোষ, শেখ জামাল উদ্দিন, রাইসুল ইসলাম চন্দন প্রমুখ।

তারা বলেন, ২৬ জন নিহতের ঘটনায় বেঁচে যাওয়া এক বাংলাদেশি ঘটনার যে বিবরণ দিয়েছেন এবং গণমাধ্যমের খবরেও সেসব কথা উঠে এসেছে। ৩৭ জন বাংলাদেশিসহ ৪০-৪২ জন মানুষকে জিম্মি করে মুক্তিপণ আদায়ের জন্য জড়ো করেছিল মানবপাচারকারী চক্র। এই চক্রকে গ্রেফতার করে বিচারের আওতায় আনার পাশাপাশি এর সঙ্গে জড়িতদের সবাইকে খুঁজে বের করতে বিভিন্ন দেশকে প্রয়োজনে একসঙ্গে কাজ করতে হবে। লিবিয়া থেকে বিভিন্ন সময় ফিরে আসা বাংলাদেশিরা জিম্মি ও মুক্তিপণ আদায়সহ নিপীড়নের নানা ঘটনার বর্ণনা দিয়েছেন।

তারা আরো বলেন, অভিবাসী শ্রমিকদের স্বার্থ ও নিরাপত্তা বিধানের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের প্রবাসী ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ও দায়িত্বহীন ও অকার্যকরী ভূমিকা পালন করে এসেছে। বাংলাদেশের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়, দূতাবাসসহ শ্রমিকদের বিদেশে পাঠানোর সঙ্গে যুক্ত প্রতিষ্ঠান ও মানবপাচারকারীদের কারণে এখন কয়েক লাখ বাংলাদেশি অভিবাসী শ্রমিকেরা এক ভয়াবহ মানবিক বিপর্যয়ের মুখে পতিত হয়েছে।

একই সাথে নেতৃবৃন্দ লিবিয়ায় নিহতদের জন্য গভীর শোক জানিয়ে আহতদের উপযুক্ত চিকিৎসা এবং তাদের পরিবারসমূহের পুনর্বাসনেরও দাবি জানিয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *