বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ০৯:৩১ অপরাহ্ন

শিরোনাম-
গাজায় ইসরায়েলি হামলায় নিহত আরও ৩৮ ফিলিস্তিনি জেলেনস্কির হোমটাউনে রাশিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় নিহত ৯ বিমান দুর্ঘটনায় ভাইস প্রেসিডেন্ট নিহত: মালাবিতে ২১ দিনের শোক সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান হত্যা: বিচারের দাবীতে টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে মহাসড়ক অবরোধ মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার অস্থিরতাকারীদের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর হুঁশিয়ারি নাগরিক সমস্যা সমাধানে সরকার ও নাগরিকের অংশীদারিত্ব প্রয়োজন: তথ্য প্রতিমন্ত্রী বিনা কর্তনে সেন্সর ছাড়পত্র পেল ‘মুনাফিক’ আমাদের দিয়ে রান্না করাতো জলদস্যুরা, খেয়ে ফেলতো সবই যাতায়াতের দুর্ঘটনায় ক্ষতিপূরণ পাবে পোশাক শ্রমিকরা আলোচিত সংগীতশিল্পীসহ নিহত ২, পালিয়েও শেষ রক্ষা হয়নি বাসচালকের

যাত্রাবাড়ীতে ইয়াবা বিক্রির সময় গ্রেফতার ৭

বর্তমানকণ্ঠ ডটকম / ৩৭ পাঠক
বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ০৯:৩১ অপরাহ্ন

নিউজ ডেস্ক,বর্তমনাকণ্ঠ ডটকম,মঙ্গলবার,০৫ জুন ২০১৮: রাজধানীর যাত্রাবাড়ী এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৩৬ হাজার পিস ইয়াবাসহ সাত মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের একটি দল।

পুলিশ জানায়, গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে একজন কোরআনে হাফেজ, যিনি দীর্ঘদিন ধরেই ওই চক্রের হোতা হিসেবে রাজধানীতে ইয়াবা ব্যবসা করে আসছিলেন।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- হাফেজ শহিদুল্লাহ (৩০), স্বপন দত্ত (৩২), মো. মাহবুর সরদার (৩০), মাহমুদ হোসেন (৩০), মো. ইসমাইল হোসেন (৪৭), মো. কালা হাসান (৪৫) ও মো. বরকত আলী (৩৫)। তাদের কাছ থেকে ৩৬ হাজার পিস ইয়াবা ও একটি মিনি ট্রাক জব্দ করা হয়। মঙ্গলবার ডিবির অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (এডিসি) মো. গোলাম সাকলায়েন এসব তথ্য জানান।

তিনি বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সোমবার যাত্রাবাড়ীর ঢাকা-মাওয়া রোডের পাশে মেট্রো সিএনজি ড্রেন স্টেশনের ভেতরে নামাজের জায়গায় ইয়াবা ক্রয়-বিক্রয়ের সময় শহিদুল্লাহ, স্বপন, মাহবুর ও মাহমুদকে ২৮ হাজার পিস ইয়াবাসহ গ্রেফতার করা হয়।

এডিসি সাকলায়েন আরও জানান, পরে যাত্রাবাড়ীর শনিরআখড়া ব্রিজ এলাকায় পৃথক অভিযান চালিয়ে ইসমাইল, কালা ও বরকতকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের কাছ থেকে আট হাজার ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।

ওই হাফেজ সম্পর্কে পুলিশের এই কর্মকর্তা জানান, প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে শহিদুল্লাহর বাড়ি টেকনাফের সীমান্তবর্তী শাহপরীর দ্বীপে। সে কোরআনে হাফেজ। সীমান্তবর্তী এলাকায় বাড়ি হওয়ায় সে মিয়ানমার থেকে ইয়াবা এনে তা বিক্রি করতো।

তিনি আরও বলেন, শহিদুল্লাহ মিয়ানমার থেকে ইয়াবা সংগ্রহ করে তা তারেকের মাধ্যমে ঢাকায় এনে বিভিন্ন মাদক ব্যবসায়ীর কাছে বিক্রি করতো। জিজ্ঞাসাবাদে শহিদুল্লাহ এসব স্বীকার করেছে। তবে ডিবির অভিযানের সময় তারেক পালিয়ে যায়। তাকে ধরতে অভিযান চালানো হচ্ছে।

ডিবি সূত্রে জানা গেছে, শহিদুল্লাহ (৩০) ভারতের দেওবন্দ দারুল উলুম মাদরাসা থেকে থেকে দাওরায়ে হাদিস পাস ও কোরআনে হাফেজ। পরিবারের পাঁচ ভাইয়ের চারজনই হাফেজ। হাফেজের পাশাপাশি তিনি খুব ভালো ক্বারিও। তবে বর্তমানে তিনি ইয়াবা ব্যবসা চক্রের হোতা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *