বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১:৫৮ পূর্বাহ্ন

কারগারও কবি নজরুলের কণ্ঠরোধ করতে পারে নাই : মোস্তফা

বর্তমানকন্ঠ ডটকম, ঢাকা।  / ৪৯ পাঠক
বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১:৫৮ পূর্বাহ্ন

ব্রিটিশের কারগারও কবি নজরুলের কণ্ঠরোধ করতে পারে নাই মন্তব্য করে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া বলেন, কবি কাজী নজরুল ইসলামের বিপ্লব চলেছে সারা জীবন।

সোমবার (২৩ নভেম্বর) নয়াপল্টনের যাদু মিয়া মিলনায়তনে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের রাজদ্রোহের অভিযোগে গ্রেফতার দিবস স্মরণে জাতীয় সাংস্কৃতিক আন্দোলন আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, কবি কাজী নজরুল ইসলাম শেষ জীবনে হয়তো অনেক কিছুই বুঝতেন না, কিন্তু তাঁর জীবন সংগ্রামের জীবন শক্তি তাঁকে বাঁচিয়ে রেখেছিল। এই বিপ্লবের জেরেই তাঁকে গ্রেফতার হতে হয়েছিল ব্রিটিশ পুলিশের নিকট। ১৯২২ সালের ১২ই আগস্ট কবি কাজী নজরুল ইসলাম ধূমকেতু পত্রিকা প্রকাশ করে। ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনে এই পত্রিকার ভূমিকা ছিল খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সশস্ত্র বিপ্লববাদের ক্ষেত্রেও ধূমকেতুর বিশেষ প্রভাব ছিল।

তিনি বলেন, ২৬ সেপ্টেম্বর, ১৯২২ সংখ্যায় নজরুলের কবিতা আনন্দময়ীর আগমনে প্রকাশিত হয়। এই রাজনৈতিক কবিতা প্রকাশিত হওয়ায় ৮ নভেম্বর পত্রিকার উক্ত সংখ্যাটি নিষিদ্ধ ঘোষিত হয়। একই বছরের ২৩ নভেম্বর তার যুগবাণী প্রবন্ধগ্রন্থ বাজেয়াপ্ত করা হয় এবং একই দিনে তাকে কুমিল্লা থেকে গ্রেফতার করা হয়।

ন্যাপ মহাসচিব আরো বলেন, ঔপনিবেশিক ব্রিটিশ সরকার নজরুলের স্বাধীন কণ্ঠস্বর, নির্ভীক মনোভাব এবং কর্মকাণ্ডকে সন্ত্রাসী বা জঙ্গি চরমপন্থী তৎপরতা আখ্যা দেয়। ব্রিটিশের বিরুদ্ধে গণজাগরণের জন্য এত তীব্র ও স্বতঃস্ফূর্তভাবে আঘাত করার মতো কেউ ছিল না। ব্রিটিশ-শাসিত ভারতে নজরুলের মতো এমন বিদ্রোহীর আর কোনও দৃষ্টান্ত ছিল না। ফলে, তৎকালীন সরকার তাঁর বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নিয়েছিল। অত্যাচার ও নির্যাতনের যে অভিজ্ঞতা তাঁর হয়েছিল, তাঁকে সহজেই বিশ্ব সাহিত্যে সবচেয়ে বিদ্রোহী কবি বলে আখ্যা দেয়া যায়।

তিনি বলেন, কাজী নজরুল ইসলামের কবিতা, গান, উপন্যাস, ছোটগল্প এবং নাটকে নির্যাতন, দাসত্ব, সাম্প্রদায়িকতা, সামন্তবাদ এবং ঔপনিবেশবাদের বিরুদ্ধে জোরালো প্রতিবাদ ছিল। যতক্ষণ না কবি শারীরিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন, কোনও অন্যায় নির্যাতন তাঁর বিদ্রোহী কণ্ঠরোধ করতে পারে নি। তিনি সারাজীবন সংগ্রাম করেছেন।

জাতীয় সাংস্কৃতিক আন্দোলনের সমন্বয়ক সোলায়মান সোহেলের সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশগ্রহন করেন বাংলাদেশ ন্যাপ ভাইস চেয়ারম্যান স্বপন কুমার সাহা, যুগ্ম মহাসচিব এহসানুল হক জসীম, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. কামাল ভুইয়া, মহানগর সভাপতি মো. শহীদুননবী ডাবলু, সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম, সংগঠনের নির্বাহী সদস্য সালমা আক্তার, মহাবুবুল আলম, ছাইদুর রহমান, বেলাল হোসেন প্রমুখ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *