শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ০২:৪৯ পূর্বাহ্ন

হিন্দু ধর্মের মৃতদেহ শ্মশানে নিয়ে মানবতার অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন ইশা আন্দোলনের

বর্তমানকণ্ঠ ডটকম / ৩৬ পাঠক
শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ০২:৪৯ পূর্বাহ্ন

এ কে আজাদ, ব্যুরো প্রধান, বর্তমানকন্ঠ ডটকম, চাঁদপুর : করোনাকালে টিভির পর্দায়, খবরের কাগজে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আমরা যখন দেখি করোনায় আক্রান্ত হওয়া ব্যক্তির লাশ দেখেতে না এসে মুখ ফিরিয়ে চলে যাচ্ছেন, এমনকি দাফনেও প্রতিবেশী তো দূরের কথা পরিবারের লোকজনের দেখা মিলছেনা, অসুস্থ্য বৃদ্ধ বাবাকে করোনায় আক্রান্ত ভেবে ঘরের মধ্যে তালা দিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করে সন্তানরা। যখন মৃতের লাশ ঘরে ফেলে রেখে পরিবারের আপন মানুষগুলো পালিয়ে যাচ্ছে, এমন খবর গুলো যখন চোখের সামনে দেখি তখন ভাবি করোনায় বুঝি মানবতা বিপন্ন হয়ে গেছে। ঠিক এর পাশাপাশি যখন দেখি করোনার এই ক্রাান্তিকালে কিছু মানুষ মানবতার অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করছেন তখন আগের ভাবনা গুলো মাটির সাথে মিশিয়ে যাচ্ছে। যখন শুনছি এদেশের দাঁড়ি টুপিওয়ালা আলেম সমাজ অন্য ধর্মের একজন মানুষের মৃতদেহ কাঁধে তুলে শ্মসানে নিয়ে যাচ্ছেন স্বৎকারের জন্য। এমন দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ চাঁদপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক টিমের সদস্যবৃন্দ।

তারা কেবল মুসলিম নয়, এই মহামারি করোনাকালে একটি সুন্দরতম সাম্য ও সম্প্রীতির ঘটনার জন্ম দিলেন। করোনার উপসর্গ নিয়ে মৃত এক সনাতন ধর্মের ব্যাক্তির মৃতদেহ নিয়ে গেলেন মহা-শ্মশানে ইসলামী আন্দোলনের এই স্বেচ্ছাসেবক টিমটি। ২ জুন রাতে এই স্বেচ্ছাসেবী টিমটি হিন্দু ভাইটির মরদেহ নিয়ে চাঁদপুর ইচুলী ঘাটস্থ শ্মশানে যায়। যা সাম্য ও মানবতার অনন্য দৃষ্টান্ত বলে মনে করছেন চাঁদপুরের সকল ধর্মের সুধিজন। এমন কাজের সাথে সংশ্লিষ্ট সকলকে অন্তরিক অভিবাদন জানাচ্ছেন সকলে।

এবিষয়ে ইসলামি আন্দোলনের চাঁদপুর জেলা শাখার সেক্রেটারি ইয়াসিন রাশেদ সানি জানান, চাঁদপুর জেনারেল হাসপাতাল থেকে আমাদের টিমকে খবর দেয়া হলে আমরা হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে যাই। সেখানে সনাতন ধর্মের মৃত হাইমচর উপজেলার শমির চন্দ্র দাসের ভাই রবি চন্দ্র দাসের সাথে কথা বলি, তিনি আমাদের অনুরোধ করেন তার ভাইেয়ের লাশটি যেন আমরা শ্মশানে দিয়ে আসি। তার কথা মত তার মৃত ভাই শমির চন্দ্রের লাশ আমরা চাঁদপুর ইচলিস্থ মহা-শ্মশানে নিয়ে যাই এবং সৎকার করে দেই। তিনি আরো বলেন আমরা মৃত্যুর ঝুঁকি নিয়ে প্রথম থেকেই করোনাক্রান্ত মৃতদেহ দাফন করে যাচ্ছি। এই প্রথম কোন সনাতন ধর্মের মৃত ব্যাক্তির সৎকার কাজে নিয়োজিত হলাম।

প্রসঙ্গত : সারাদেশের ন্যায় চাঁদপুরেও বাংলাদেশ ইসলামী আন্দোলনের স্বেচ্ছাসেবক টিম মৃত্যুর ঝুঁকি নিয়ে করোনাক্রান্ত মৃতদেহ দাফন করে যাচ্ছেন। এখন পর্যন্ত তারা ২৪ টি মৃতদেহের জানাজা ও দাফন সম্পন্ন করেছেন। জয় হউক সম্প্রীতির, জয় হউক মানবতার, জয় হউক মানুষের।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *