শুক্রবার | ৩রা জুলাই, ২০২০ ইং |

২ বাংলাদেশি দালাল সহ ৫ ইতালীয় খামার মালিক গ্রেফতার

মাঈনুল ইসলাম নাসিম, বর্তমানকন্ঠ ডটকম, ইতালি : হতভাগ্য বাংলাদেশিদের চোখের জলে ভাসছে দক্ষিণ ইতালির ফসলের মাঠ। কাগজপত্রের দিক দিয়ে অনিয়মিত বা অবৈধ হলেও হাজার হাজার মাইল দূরের অন্য মহাদেশ থেকে আসা এসব অভিবাসীরা যতটা না নিরব স্বভাবের তার চাইতে ছিলো বেশি কর্মঠ। এতো এতো গুণ থাকা সত্ত্বেও নিপীড়িত এসব বাংলাদেশিদের দুঃখ দুর্দশার গল্প আজ ২৩ জুন ইতালির জাতীয় গণমাধ্যমে উঠে এসেছে বেশ ফলাও করে। ইতালির দক্ষিণাঞ্চলীয় কালাব্রিয়া বিভাগের কোসেনছা প্রভিন্সে এক অন্ধকার কৃষি খামারে রীতিমতো গিনিপিগ বানিয়ে রাখা হয়েছিলো তাঁদেরকে।

ঘটনার বিবরণে জানা যায়, কোসেনছা প্রভিন্সের আমান্তেয়া পৌর এলাকার কৃষি খামারে দিনের পর দিন অন্যায় অত্যাচার সইতে না পারা খামারে কর্মরত এক বাংলাদেশির অভিযোগের প্রেক্ষিতে পুলিশের স্পেশাল ফোর্স অতি সম্প্রতি বিশেষ অভিযান পরিচালনা করলে বেরিয়ে আসে অন্ধকার জগতের নেক্কারজনক বাস্তবতা। সুনির্দিষ্ট অভিযোগে ইতোমধ্যে গ্রেফতার করা হয়েছে খামারের ৫ ইতালিয়ান মালিক জেন্নারো, ফ্রাঞ্চেস্কো, রক্কো, সাভেরিও এবং রবের্তোকে। এদের সহযোগী হিসেবে আটক হয়েছে দুই বাংলাদেশি দালাল আনোয়ার হোসেন মিজান এবং কাকন দাস।

কোসেনছা প্রভিন্সের পাওলা এরিয়ার প্রসিকিউটর পিয়েরপাওলো ব্রুনি এবং ম্যাজিস্ট্রেট মারিয়াগ্রাৎসিয়া এলিয়া জানান, হাজার হাজার মাইল বিপদসংকুল ভয়ংকর পথ পাড়ি দিয়ে স্বদেশী দালালদের মাধ্যমে ইতালি আসার পর ২০ থেকে ৫০ বছর বয়সী এসব হতভাগ্য বাংলাদেশিদের নিয়ে এখানকার স্থানীয় কাজের বাজারে যা ঘটেছে তা রীতিমতো ভয়ংকর। ঘন্টায় মাত্র ১ ইউরো ৫০ সেন্ট পারিশ্রমিক দিয়ে ক্ষান্ত হয়নি খামার মালিক, গালিগালাজ ও হুমকিধামকিতে টানা ২৬ ঘন্টার শিফটেও কাজে বাধ্য করতো শ্রমিকদের। দিন শেষে ভাঙ্গা টয়লেট সমৃদ্ধ ছোট এপার্টমেন্টে ১০ জনকে রাখা হতো গাদাগাদি করে।

নিপীড়ন আর বঞ্চনার শেষ ছিলো না খামারে। আটককৃত ৫ মালিক এবং পালিত দালাল ও সহযোগী সাঙ্গপাঙ্গরা খামারের অভ্যন্তরে নিজেরা চেয়ার টেবিলে বসে খাবার খেলেও ভিন্ন রঙের অন্য চামড়ার ‘গিনিপিগ’ বাংলাদেশিদেকে খাবার খেতে দেয়া হতো তাদের সামনেই মাটিতে লাইন ধরে বসিয়ে। স্থানীয় পুলিশের উপপ্রধান জুসেপ্পে জানফিনি কর্তৃক পরিচালিত অপারেশনে অবশেষে হাতেনাতে গ্রেফতার করা হয় অপরাধীদের। দেড় ইউরো ঘন্টা বেতন আর টানা ২৬ ঘন্টার শিফট ডিউটির লোমহর্ষক খবরে নিন্দার ঝড় বইছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ইতালিয়ানদের মাঝেই।

মাঈনুল ইসলাম নাসিম, ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক।

সময় বাচাঁতে ঘরে বসে কেনা-কাটা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *